বিশেষ প্রতিবেদন

রবিবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৫ (১৭:৪৬)

দেশ কলঙ্ক থেকে দায়মুক্তির পথে

শাহরিয়ার কবির

মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধে একাত্তরের আলবদর কমান্ডার আলী আহসান মুজাহিদ ও হানাদার পাকিস্তানিদের দোসর সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ফাঁসি কার্যকর করায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্বজন ও বিশিষ্টজনেরা।

দেশ টিভিকে দেয়া একান্ত সাক্ষাতকারা তারা যা বলেছেন:

যুদ্ধাপরাধীদের রায় কার্যকরের মধ্য দিয়ে দেশ কলঙ্ক থেকে দায়মুক্ত হচ্ছে। স্বজনহারা মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে। একই সঙ্গে তারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী সংগঠন হিসেবে জামাতের বিচার ও দলটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণার দাবি জানান জামাতে ইসলামীর নেতা আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদের মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রথম সাক্ষী ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির।

দেশ টিভিকে শাহরিয়ার কবীর বলেন, ‘ব্যক্তির পাশাপাশি দলেরও বিচার করতে হবে যদি না করা হয় তবে এ বিচার ভুক্তভোগীদের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। গণহত্যার রাজনীতি যদি বাংলাদেশে বন্ধ না হয়, গণহত্যার পুনরাবৃত্তি হবে। ৭২ সংবিধানের এ দলগুলো নিষিদ্ধ ছিল। বঙ্গবন্ধু পরিস্কার বলেছিলেন ধর্মের নামে হত্যা গণহত্যা ধর্ষণ ধংধ্বেস পুনরাবৃত্তি আমরা আর দেখতে চাই না।’

শাহরিয়ার কবির বলেন, ফাঁসি কার্যকরের মধ্য দিয়ে দুই মানবতাবিরোধী অপরাধীর সাজা শেষ হয়ে যায়নি। এখন এই অপরাধীদের সম্পদও বাজেয়াপ্ত করে শহীদ পরিবারের কল্যাণে ব্যয় করতে হবে।

তিনি বলেন, সাকা চৌধুরী বাংলাদেশের রাজনীতিকে কলুষিত করেছেন, তিনি ছিলেন রাজনীতির কদর্য এক উদাহরণ। সাকা চৌধুরী রাজনীতিতে যে অশ্লীলতা চালু করেছিলেন, তা যেন পুনরাবৃত্তি না হয়। সাকা স্বাধীনতার পরও ৪৪ বছর বেঁচেছিলেন, তার ফাঁসিই যথেষ্ট নয়। তার সম্পদ বাজেয়াপ্ত করতে হবে। এই সম্পদ শহীদ পরিবারের কল্যাণে ব্যয় করতে হবে। সাকা ছিলেন পাকিস্তানের সবচেয়ে বড় এজেন্ট। সাকাকে বাঁচানোর জন্য সে দেশের কূটনীতিকেরা মরিয়া হয়ে শিষ্টাচারবহির্ভূত কাজ করেছেন ও তাকে রক্ষার ষড়যন্ত্র করেছেন। একাত্তরে পাকিস্তানের সামরিক পরাজয় হয়েছিল। কিন্তু এবার সাকার ফাঁসি কার্যকরের মধ্য দিয়ে পাকিস্তানের রাজনৈতিক ও আদর্শিক পরাজয় হলো। সাকা মনে করেছিলেন তাঁর হাত অনেক লম্বা। কিন্তু বাংলাদেশের আইন প্রমাণ করেছে, আইনের হাত তাঁর চেয়েও অনেক লম্বা।

মুজাহিদের বিষয়ে শাহরিয়ার কবীর বলেন, মুজাহিদ যেহেতু নিজের অপরাধ স্বীকার করেছেন, তাই সরকারের উচিত হবে কোনো ধরনের সমঝোতা না করে এর মাধ্যমে দল হিসেবে জামাতের বিচার শুরু করা। তার স্বীকারোক্তি নিজামীসহ অন্য জামাতের নেতাদের বিচারে ভালো একটি নথি হিসেবে কাজ করবে। এ বিষয়ে কালবিলম্ব করা ঠিক হবে না। এছাড়া মুজাহিদসহ জামাতের অর্থ বাজেয়াপ্ত করতে হবে। এগুলোও শহীদ পরিবারের কল্যাণে ব্যয় করতে হবে। নুরেমবার্গ ট্রায়ালে এভাবে দণ্ডপ্রাপ্তদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার উদাহরণ আছে। জামাতের নেতা ও তাদের আর্থিক খাত বাজেয়াপ্ত না করলে এ দেশে আবার জামাত ডাল-পালা তৈরি করবে। জঙ্গি তৈরি হবে। তাই সরকারকে তাদের অর্থ বাজেয়াপ্ত করতে হবে।

আর যুদ্ধাপরাধীদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের মধ্য দিয়ে জাতি কলঙ্কমুক্ত হচ্ছে-বললেন সাবেক বিচারপতি সৈয়দ আমিরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘গণহত্যা অপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে আমরা ধীরে ধীরে দায় মুক্ত ও কলঙ্ক হচ্ছি। এখন নতুন প্রজন্মকে সেই দায়িত্ব নিতে হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সত্যিকার অর্থে বাস্তবায়িত করা যায়।’

একাত্তরে আলবদর কমান্ডার সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহাসান মুহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকরের মধ্য দিয়ে দেশ ও জাতি গ্লানিমুক্ত হলো বলে মনে করছেন শহীদ বুদ্ধিজীবীদের পরিবারের সদস্যরা। দেরিতে হলেও এ বিচার দেখতে পাওয়ায় তারা স্বস্তি প্রকাশ করেছেন।

শহীদ জয়া শ্যামলি নাসরিন চৌধুরী বলেন, ‘ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না আমাদের ভেতরে একটা প্রশান্তি বয়ে যাচ্ছে— বলতে পারছি না। স্বজন তো ফিরে আসবেন না। তবে বিচার পাওয়ার এতদিন যে আকুতি আজ তা কেটে গেছে।’

মুক্তিযুদ্ধের সময় এই যুদ্ধাপরাধী যে নৃশংসতা চালিয়েছিল তারজন্য মৃত্যই তাদের উপযুক্ত সাজা বলে মনে করেন মুক্তিযোদ্ধারা।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

শ্রীলংকায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা নয়, অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সংকট

অগ্নি-ঝুঁকি: রাজধানী ঘিরে যে মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের পরামর্শ

নিরাপদ সড়ক প্রতিষ্ঠায় পরিবহন মালিক-চালকদের দায়বদ্ধের তাগিদ

অপরিকল্পিত নগরায়ন, আইন না মানার প্রবণতা সব মিলিয়েই ঝুঁকিতে রাজধানীবাসী

পাট থেকে তৈরি হচ্ছে লেমিনেটেড ব্যাগ-স্লাইবার ক্যানশিট

পাইলটকে ফিরে দেয়া মানেই ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনার শেষ নয়

সৌদির সঙ্গে সামরিক সমঝোতা স্মারক চুক্তি পররাষ্ট্রনীতির পরিপন্থি

শেখ হাসিনা বিকল্পহীন, বললেন বিশ্লেষকরা

সর্বশেষ খবর

হংকংয়ের বিক্ষোভ নিয়ে অপপ্রচার, ২১০ ইউটিউব চ্যানেল বন্ধ

যাত্রাবাড়ীতে মোটরসাইকেলে বাসের ধাক্কায় বাবা নিহত, ছেলে আহত

আজ শুভ জন্মাষ্টমী

সৌদি আরবের বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা