বিশেষ প্রতিবেদন

শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০১৫ (১৪:০৫)

সভ্যতার জঘন্যতম বর্বরতার ইতিহাস

হত্যা করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু

চার দশক আগে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে রচিত হয়েছিল সভ্যতার জঘন্যতম বর্বরতার ইতিহাস। মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়াশীলদের চক্রান্তে উর্দিধারী ঘাতকচক্র এদিন নৃশংসভাবে হত্যা করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। বিদেশে থাকায় তার দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা ছাড়া এদিন নিহত হন শিশুপুত্র রাসেলসহ পরিবারের অন্য সদস্যরাও। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ঘাতকরা রুখতে চেয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে।

তবে ইতিহাসবিদদের মতে, বঙ্গবন্ধু আরো বেশি শক্তিশালী হয়েছেন আর প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে জাতির স্থপতি হত্যার কলঙ্কিত ইতিহাস জানাতেই এদিন পালন করতে হবে জাতীয় শোক দিবস।

বাংলাদেশ স্বাধীন, বঙ্গবন্ধুর ঘোষণা এলো একাত্তরের ২৬ মার্চ। হানাদার পাকিস্তানিদের হটাতে শুরু হলো সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ। স্বাধীনতা রক্ষার সেই মরণপণ লড়াইয়ে জয় আসে ১৬ ডিসেম্বর। পরাজিতরা মাথা নোয়ালো, বাংলাদেশ পেলো বিজয় দিবস। মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বে, লাখো মানুষের আত্মত্যাগ আর মা-বোনদের সম্ভ্রমের বিনিময়ে সেই বিজয় পূর্ণতা পেলো বাহাত্তরের ১০ জানুয়ারি, যেদিন দেশে ফিরলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু।

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে শুরু হলো নতুন অভিযাত্রা, দেশ গড়ার সংগ্রাম। কিন্তু সাড়ে তিন বছরের মাথায় আবার আক্রান্ত বাংলাদেশ । নিহত হলেন জাতির জনক। থমকে দাঁড়ালো মুক্তিযুদ্ধের অর্জন। চারিদিকে প্রতিক্রিয়াশীলতা-সাম্প্রদায়িকতার অন্ধকার। সেটাই ১৫ই আগস্ট ১৯৭৫।

১৫ আগস্ট প্রথম প্রহরে রাতের নিস্তব্ধতা ভেঙে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে আওয়াজ ওঠে ঠক ঠক বুট, ট্যাংক ও সশস্ত্র কনভয় চলাচলে। কাজটি করায় কয়েকজন মেজর, সবাই পাকিস্তান-ফেরত। সৈন্যদের জড়ো করে জানানো হয় নীলনকশা, তাদেরকে হতে হবে ঘাতক। ৩টি গ্রুপে ভাগ হয়ে ট্যাংক ও কামান বহর নিয়ে ঘাতকরা রওনা দেয় কিলিং মিশনে। টার্গেট ধানমন্ডির ৩২ নম্বর, সঙ্গে ধানমণ্ডিরই আরেকটি এবং মিন্টো রোডের একটি বাড়ি। লক্ষ্য বাংলাদেশকে পাকিস্তানিকরণে বঙ্গভবন, বেতার ভবন ও টিভিকেন্দ্র দখল।

ভোরের দিকে ৩২ নম্বরের বাইরে থেকে ফায়ার শুরু করে ঘাতকদল। পাল্টা জবাব দেয় গার্ডের দায়িত্বে থাকা বাহিনীও। সেনাবাহিনী থেকে প্রতিরোধকারী দল এসে গেছে ভেবে একপর্যায়ে বঙ্গবন্ধুই বাড়ির ভেতর থেকে গুলি বন্ধের নির্দেশ দেন, নিজেদের লোকই মরতে পারে ভেবে। এই সুযোগে ঘাতকদল ঢুকে পড়ে ভেতরে। প্রথমেই হত্যা করে তাদের প্রতিরোধে নিচে নেমে আসা শেখ কামালকে। দোতলার ঘর থেকে বের হন বঙ্গবন্ধু। সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে হুঙ্কার ছাড়েন খুনিদের উদ্দেশ্যে। বলেন, "আমাকে কোথায় নিয়ে যেতে চাস তোরা ?" সঙ্গে সঙ্গেই ব্রাশফায়ার। লুটিয়ে পড়েন জাতির জনক।

এরপর ৪-৫জন ঘাতক বাড়ির ভেতরে একে একে হত্যা করে বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী ফজিলাতুন্নেসা, পুত্র শেখ জামাল, দুই পুত্রবধু সুলতানা ও রোজী ও ভাই শেখ নাসেরকে। ছাড় পায়নি শিশু রাসেলও।

একই সময়ে খুনিচক্রের আরেকটি গ্রুপ যায় ধানমন্ডি লেকের অপর পাড়ে বঙ্গবন্ধুর বোনের ছেলে যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ মণির বাসায়। নিহত হন শেখ মনি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনি।

ঘাতকরা হত্যাযজ্ঞ চালায় মিন্টো রোডে বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি মন্ত্রী আব্দুর রব সেরনিয়াবাতের সরকারি বাড়িতেও। সেরনিয়াবাতের সংগে খুন হন তার মেয়ে বেবী, ছেলে আরিফ, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহর চারবছরের ছেলে বাবু।

অন্যদিকে, ৩২ নম্বরকে টার্গেট করে খুনিদের ছোড়া কামানের গোলা লক্ষভ্রষ্ট হয়ে গিয়ে পড়ে মোহাম্মদপুরের শেরশাহ সুরী রোডে। ছিন্নভিন্ন হয়ে যান আরো ১৩জন।

পঁচাত্তরের এই হত্যাযজ্ঞ বা বাংলাদেশের পটপরিবর্তনের চেষ্টায় ঘাতকেরা কী ভেবেছিল বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও স্বাধীনতার মৌল নীতিকে শেষ করে দেয়া যাবে ?

বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ - এ সবই সমার্থক। কোনো অপশক্তিই কখনো তা মুছে ফেলতে পারবে না। তাই জাতির জনককে হারানোর দিনটির পালন হতে হবে সর্বজনীন। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোকের দিন। সংকীর্ণতা নয়, তাকে ধারণ করতে হবে মর্ম-মূলে।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

শ্রীলংকায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতা নয়, অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সংকট

অগ্নি-ঝুঁকি: রাজধানী ঘিরে যে মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের পরামর্শ

নিরাপদ সড়ক প্রতিষ্ঠায় পরিবহন মালিক-চালকদের দায়বদ্ধের তাগিদ

অপরিকল্পিত নগরায়ন, আইন না মানার প্রবণতা সব মিলিয়েই ঝুঁকিতে রাজধানীবাসী

পাট থেকে তৈরি হচ্ছে লেমিনেটেড ব্যাগ-স্লাইবার ক্যানশিট

পাইলটকে ফিরে দেয়া মানেই ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনার শেষ নয়

সৌদির সঙ্গে সামরিক সমঝোতা স্মারক চুক্তি পররাষ্ট্রনীতির পরিপন্থি

শেখ হাসিনা বিকল্পহীন, বললেন বিশ্লেষকরা

সর্বশেষ খবর

এফআর টাওয়ারের মালিক ফারুক গ্রেফতার

খুলনার সঙ্গে সারা দেশের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

স্বামীকে মারধর করে স্ত্রীকে ৩ জন মিলে ধর্ষণ

রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে সেনা সদস্য নিহত