রাজনীতি

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ (১৮:৩০)

১৪টি প্রতিশ্রুতিতে ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা

ইশতেহার ঘোষণা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের

নাগরিকদের জীবনের নিরাপত্তা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা, রাষ্ট্রের মালিকানা জনগণের হাতে ফিরিয়ে দেওয়া, সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ না করা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম চলমান রাখা, পুলিশ ও সামরিক বাহিনী ছাড়া সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স সীমা না থাকাসহ ১৪টি মূল প্রতিশ্রুতিসহ ৩৫ দফার ইশতেহার ঘোষণা করল জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

সোমবার রাজধানীর একটি হোটেলে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি-গণফোরাম, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহার ঘোষণা করে।

এতে আরো বলা হয়েছে- ক্ষমতায় এলে পরাজিতদের মতামত নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা, ক্ষমতার ভারসম্য এনে টানা দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী না থাকা, শুধু অনগ্রসর জনগোষ্ঠী-প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা রাখা,সংখ্যালঘুদের জন্য আলাদা মন্ত্রণালয় গঠনসহ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিৎ করা।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি-গণফোরাম, জেএসডি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ও নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহার ঘোষণা করতে রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেন ফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন, মুখপাত্র বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ অন্যান্য নেতারা।

ইশতেহার ঘোষণার আগে স্বাগত বক্তব্যে ড. কামাল হোসেন-নির্বাচনী প্রচারণায় প্রার্থীদের ওপর হামলা-গ্রেপ্তারের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এই মূহুর্ত থেকে এটা বন্ধ না হলে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সংশয়ও প্রকাশ করেন তিনি।

৩০ ডিসেম্বর ব্যালট-অভ্যুত্থান হবে-এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের শিক্ষার্থীদের মত রাষ্ট্রের মেরামতও করতে চান বিশিষ্ট এ আইনজীবী।

১৪টি মূল প্রতিশ্রুতিসহ ৩৫ দফা প্রতিশ্রুতি রেখে ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহার পাঠ করেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর মান্না।

এতে বলা হয়-প্রজাতন্ত্রের সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ-সংবিধানের এই নীতির ভিত্তিতে রাষ্ট্র পরিচালিত হবে এবং নির্বাচনে পরাজিতদের মতামত ও অংশহগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে। নির্বাচনকালীন সরকারের বিধান তৈরি করাসহ ক্ষমতার ভারসম্য এনে টানা দুই মেয়াদের বেশি প্রধানমন্ত্রী থাকা যাবে না- এমন বিধান করা হবে। সংসদে গঠন করা হবে উচ্চকক্ষ। একদলীয় শাসন যাতে আর ফিরে না আসে, সে ব্যবস্থাও করবে ঐক্যফ্রন্ট।

সশস্ত্র বাহিনী ছাড়া সরকারি চাকরিতে প্রবেশের জন্য কোন বয়স সীমা থাকবে না। একই সঙ্গে অনগ্রসর জনগোষ্ঠী ও প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা ছাড়া আর কোন কোটা থাকবে না। ত্রিশোর্ধ্ব শিক্ষিত বেকারদের জন্য ভাতা চালু করতে কমিশন গঠন এবং পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হবে। ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে স্থান পেয়েছে আলোচিত নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারীদের বিচারের আওতায় আনা এবং শহরে গণপরিবহনকে প্রাধান্য দিয়ে পরিবহন নীতি প্রণয়ন।

বর্তমান সরকারের কোন উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ করা হবে না এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম চলমান থাকবে। সংখ্যালঘুদের জন্য প্রতিষ্ঠা করা হবে আলাদা মন্ত্রণালয়।

প্রতিশ্রুতির মধ্যে রয়েছে-জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় সর্বদলীয় সত্যানুসন্ধান ও বিভেদ নিরসন কমিশন গঠন, হত্যা ও গুম পুরোপুরি বন্ধ করা। ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন বাতিল করা আর গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি হবে ১২ হাজার টাকা। প্রবাসীদের ভোটাধিকার নিশ্চিৎ করাসহ জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হবে জেলা পরিষদ।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এ ইশতেহার বৈপ্লবিক ইশতেহার হিসেবে পরিগণিত হবে বলে মন্তব্য করেন ফ্রন্টের মুখপাত্র বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ভোট প্রয়োগের মাধ্যমে জনগণ তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করবে বলেও মনে করেন তিনি।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

খুলনায় আ.লীগের সম্মেলন আজ

চট্টগ্রাম-৮ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন মোছলেম উদ্দিন

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ

রাজশাহীতে আ’লীগের সম্মেলনের দুটি তোরণে দুর্বৃত্তের আগুন

চেয়ার ছোড়াছুড়ি দিয়ে চট্টগ্রামে আ’লীগের সম্মেলন শুরু

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল

আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা সোমবার

আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি পদে পরিবর্তন আসবে না: ওবায়দুল কাদের

সর্বশেষ খবর

দুর্নীতির জন্য সব অর্জন ম্লান হয়: শেখ হাসিনা

খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ

মোটরসাইকেল পোড়ানোর মামলায় ফখরুল-রিজভীসহ আসামি ১৩৫

সবার জন্য উন্মুক্ত কনসার্ট ফর ডিজিটাল বাংলাদেশ