রাজনীতি

হরতালে নাশকতায় খালেদার ইন্ধন রয়েছে: আ’লীগ

 হাছান
হাছান

হরতাল চলাকালে নাশকতায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ইন্ধন রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ। বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে হরতালবিরোধী কর্মসূচিতে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় জামাতের হরতালকে আদালত অবমাননার শামিল বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। ক্ষমতায় যেতে না পেরে বিএনপি-জামাত এখন সহিংসতার পথ বেছে নিয়েছে বলেও জানান তারা।

বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের সমালোচনা করে তারা বলেন, আওয়ামী লীগ নয় বিএনপি নেতারাই মানসিক বিকারগ্রস্তের মতো কথা বলছেন। পাশাপাশি হরতালকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আদালতের প্রতি আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ নেতারা।

এছাড়া জনজীবনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতেও বলেন নেতারা।

এদিকে, রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ সড়ক ও জনপথ শ্রমিক-কর্মচারি ইউনিয়নের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুর কাদের বলেন, হরতালে জনজীবন স্বাভাবিক রয়েছে।

তিনি বলেন, হরতালের নামে সহিংসতা, নাশকতা করলে সরকার তা কঠোর হাতে দমন করবে।

তিনি বলেন, জনগণ এখন আর হরতাল চায় না, হরতালের নামে অহেতুক সহিংসতা করলে তা কঠোর হস্তে দমন করা হবে আর জনগণের স্বার্থে আমাদেরকে তা করতে হবে।

পরে মানববন্ধন শেষে মহানগর নেতাদের নেতৃত্বে হরতাল বিরোধী মিছিল রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নেতাকর্মীরা।

ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী এবং ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি জামাত-শিবিরকে মদদ দেয়ায় বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে একদিন আইনের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি এখন আর কোনো রাজনৈতিক দল নয়, এ দলটি এখন রক্তপিপাসু দানবদের দলে পরিণত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়া জামাতের আমিরের দায়িত্ব পালন করছেন তাই তার দলের নেতা-কর্মীরা তার কথা শোনেন না।

সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে সম্মিলিত আওয়ামী সমর্থক জোটের উদ্যোগে জামাতের ডাকা হরতালের বিরুদ্ধে আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল-পূর্ব সমাবেশে এ কথা বলেন।

মায়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০২১ সালের আগেই দেশ মধ্যমআয়ের দেশে পরিণত হবে বুঝতে পেরেই বিএনপি ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। তারা দেশে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি তৈরি করে ক্ষমতায় আসতে চায়।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের কোনো নেতা-কর্মী জীবিত থাকা অবস্থায় বিএনপির এ ষড়যন্ত্র সফল হবে না। রাজাকারের গাড়িতে জাতীয় পতাকা উড়তে দেয়া হবে না।

মায়া বলেন, ২০১৪ সালেই বিএনপির চুড়ান্ত পতন হয়ে গেছে, ২০১৫ সাল হবে তাদের সর্বনাশের বছর।

কামরুল বলেন, জামাত আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হরতাল আহ্বান করেছে। যা আদালতকে অবমাননা করা।

তিনি বলেন, আদালতের রায় ঘোষণার সাথে সাথে তারা হরতাল আহ্বান করবে- আবার রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিলের সুযোগ গ্রহণ করবে -এটা হতে পারে না। এটা পরস্পর-বিরোধী।

কামরুল বলেন, জামাতের ধ্বংসাত্মক হরতাল কর্মসূচির ঘোষণার পেছনে বিএনপির মদদ রয়েছে। তাদের মদদ ছাড়া হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করার মতো সাহস জামাতের নেই।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামাত ২০১৩ সালের মতো দেশকে সন্ত্রাসের অভয়ারণ্যে পরিণত করতে চায়। তাই তাদের প্রতিরোধ করা ছাড়া বিকল্প কোনো পথ খোলা নেই। রাজপথে তাদের মোকাবেলা করতে হবে।

সমাবেশ শেষে জোটের উদ্যোগে একটি বিরাট বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি বায়তুল মোকাররম দক্ষিণ গেট হয়ে জিপিও মোড় ঘুরে আবার দলীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

দেশটিভি/টিআরটি
দেশ-বিদেশের সকল তাৎক্ষণিক সংবাদ, দেশ টিভির জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখতে, সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল:

এছাড়াও রয়েছে

জোর-জবরদস্তির নির্বাচন হবে, এমন মেসেজ পাচ্ছি: জিএম কাদের

আমরণ অনশনের ঘোষণা ইডেন ছাত্রলীগের বহিষ্কৃতদের

আলোচিত মহিউদ্দিন মহারাজের মনোনয়ন প্রত্যাহার

প্রধানমন্ত্রী সকল যড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বীরদর্পে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে: মির্জা আজম

যা যা চাওয়া হয়েছে ভারত সব দিয়েছে: সেতুমন্ত্রী

কৃত্রিম সার সংকট সৃষ্টিকারীদের কঠোর হুশিয়ারি কৃষক লীগের

সড়ক-মহাসড়ক যেন মরণ ফাঁদ: জিএম কাদের

আগামী নির্বাচনে ফাইনাল খেলা হবে: কাদের

সর্বশেষ খবর

ছাত্ররাজনীতির কলুষিত নগ্নরূপ উন্মোচিত হয়েছে: মহিলা পরিষদ

ইন্দোনেশিয়ায় ফুটবল মাঠে সংঘর্ষ, নিহত ১২৯

সবজির হাটে মালবাহী ট্রাকের চাপায় নিহত ৫

গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী