জাতীয়

নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ চায় সরকার

সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ চায় সরকার বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার ( ১৪ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টায় গণভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জোটবদ্ধ থাকবে নাকি এককভাবে অংশগ্রহণ করবে- এ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সবাই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করুক, সেটাই আমরা চাই। যদি কেউ না করে, সেটা যার যার দলের সিদ্ধান্ত। সেজন্য আমাদের সংবিধান তো আমরা বন্ধ করে রাখতে পারি না। সংবিধানের ধারা অনুযায়ী, দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকবে। আমরা চাই, গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জোটবদ্ধভাবে করবে না এককভাবে করবে, তা সময়ই বলে দেবে। আমরা ১৪ দল করে জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করেছি। জাতীয় পার্টি আলাদা নির্বাচন করেছে। তবে আমাদের সঙ্গে সমঝোতায় ছিল। কিন্তু ভবিষ্যত নির্বাচনে কে, কোথায় থাকবে তা তো সময়ই বলে দেবে। আর আওয়ামী লীগ উদারভাবে কাজ করে, সব দরজা খোলা রাখে।’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন যারা তত্ত্বাবধায়ক বা ইত্যাদি বলে চিৎকার করছে তাঁরা ওয়ান ইলেভেনের কথা ভুলে গেছে? ২০০৭ এর কথা ভুলে গেছে? কী অবস্থাটার সৃষ্টি হয়েছিল? কী সাংবাদিক, কী রাজনৈতিক কর্মী, কী ব্যবসায়ী- সবার নাভিশ্বাস উঠেছিল। সেই অবস্থা থেকে তো সবাই অন্তত মুক্তি পেয়েছেন।

আওয়ামী লীগ একটানা অনেক দিন ক্ষমতায় থাকার কারণে দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ভুলে গেছেন, পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে হত্যা করার পর বারবার ক্যু হচ্ছিল। একটা মিলিটারি ডিক্টেটরের পর আরেকটা মিলিটারি ডিক্টেটর অথবা ডিক্টেটরের স্ত্রী ক্ষমতা নিয়ে গেল ক্যান্টনমেন্টের ভেতরে। জনগণের কী ছিল তখন? সারারাত কারফিউ। কথা বলার অধিকার নাই। সাদা মাইক্রোবাস হলেই তো কে কখন গায়েব হয়ে যাচ্ছে ঠিক নাই। এইতো ছিল বাংলাদেশের অবস্থা। আওয়ামী লীগ আসার আগে কে এতো কথা বলার সুযোগ পেয়েছে বলেন তো? তবে হ্যাঁ, এখন শুনি, সব কথা বলার পরে বলে- কথা বলার অধিকার নেই।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ যে বিএনপির হাতে নির্যাতিত সে কথাটা ভুলে গেছেন? সবাই চড়াও হচ্ছে। সেই জিয়াউর রহমান থেকে শুরু করল। এরপর থেকে একের পর এক। লাশ টানতে টানতে তো নাভিশ্বাস উঠেছিল আওয়ামী লীগের। আজকে কি সেই পরিস্থিতি আছে? এমনকি আমার দলের লোকও অন্যায় করলে ছেড়ে দেই না। যে অন্যায় করে তার বিরুদ্ধে আমি ব্যবস্থা নিই। এই দেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকুক, শান্তিপূর্ণ পরিবেশ আসুক।

মত প্রকাশের পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছেন দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত কথা বলার অধিকার, চলার অধিকার, সমালোচনার অধিকার, প্রশংসা করার অধিকার- সবই তো পাচ্ছেন। কাউকে মুখ বন্ধ করে রাখছি না, বাধা দিচ্ছি না। মত প্রকাশের পূর্ণ স্বাধীনতা আমি দিয়েছি- এটা স্বীকার করতে হবে। আমার স্বার্থ- এ দেশের মানুষ ভালো থাকুক। আমি দেশের জন্য কাজ করেছি, মানুষের জন্য কাজ করেছি। আমার দেশের মানুষ ভালো আছে কিনা আমি সেই হিসাবটাই নিই।

উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে চাইলে জনগণ অবশ্যই আওয়ামী লীগকে ভোট দেবে বলে দৃঢ় বিশ্বাস ব্যক্ত করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমাদের সাথে কে থাকবে না-থাকবে... নতুন জোট হবে- হোক, অসুবিধা নাই। আওয়ামী লীগ উদার, দরজা খোলা।

জেলা পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়নে গতবারের তুলনায় ৩১ জন প্রার্থী পরিবর্তন হয়েছে। এই ধারাবাহিকতা সংসদ নির্বাচনেও থাকবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনে মনোনয়নে পরিবর্তন স্বাভাবিক ব্যাপার।

এর আগে লিখিত বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ঐতিহাসিক। মুক্তিযুদ্ধকালে সহযোগিতা এবং ভাষা ও সংস্কৃতির মিলের কারণে এই সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হয়েছে।

এই সফরে দুই দেশের সম্পর্কের নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সফরে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার বিষয়ে সম্মতি এসেছে। বাংলাদেশ ও ভারত সমৃদ্ধশালী দুই দেশে পরিণত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

গত ৫ সেপ্টেম্বর চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভারতে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারের ভারত সফরে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পানি ব্যবস্থাপনা, রেলপথ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, তথ্য ও সম্প্রচার বিষয়ে সাতটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হয়।

হায়দারাবাদ হাউসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যে আলোচনা হয়। এতে নিরাপত্তা সহযোগিতা, বিনিয়োগ, ক্রমবর্ধমান বাণিজ্য সম্পর্ক, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের সহযোগিতা, অভিন্ন নদীর পানি বণ্টন, পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, মাদক চোরাচালান ও মানবপাচার রোধ সংক্রান্ত বিষয়গুলো অগ্রাধিকার পায়।

দেশটিভি/এসএফএইচ
দেশ-বিদেশের সকল তাৎক্ষণিক সংবাদ, দেশ টিভির জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখতে, সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল:

এছাড়াও রয়েছে

সিলেটে ভোক্তা অধিদপ্তর ও সিসিএস-এর সচেতনতামূলক সভা

ট্রাফিক আইন মেনে চলার সংস্কৃতি গড়ে তুলুন: প্রধানমন্ত্রী

চোরাগলি দিয়ে সরকার উৎখাতের সুযোগ নেই: ওবায়দুল কাদের

এক বছরে সড়ক দুর্ঘটনা ৫৩৭১, মৃত্যু ৬২৮৪ জনের

খুলনায় দুই দিনের ‘পরিবহন ধর্মঘট’ চলছে

২৫ অক্টোবর আংশিক সূর্যগ্রহণ

ভোজ্যতেল নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর কড়া হুঁশিয়ারি

সুদানে জাতিগত সংঘর্ষ নিহত অন্তত ১৫০

সর্বশেষ খবর

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ইউল্যাব’ শিক্ষার্থীদের ফটোওয়াক

ভান্ডারিয়া ও মঠবাড়িয়ায় পৌর প্রশাসক নিয়োগ

এক্সিম ব্যাংক কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত

সিলেটে ভোক্তা অধিদপ্তর ও সিসিএস-এর সচেতনতামূলক সভা