আন্তর্জাতিক

চীনকে ঠেকাবে চার পরাশক্তি

চার পরাশক্তি একজোট। ছবি: রয়টার্স
চার পরাশক্তি একজোট। ছবি: রয়টার্স

চীনকে ঠেকাতে এবার চার পরাশক্তি একজোট হয়েছে। জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও অস্ট্রেলিয়া- এই চার দেশ ‘কোয়াড’ নামক একটি সামরিক জোট গঠন করেছে। খবর আল-জাজিরার।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দক্ষিণ চীন সাগরের বিতর্কিত জলসীমায় চীনা নৌযানের অনুপ্রবেশসহ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে চীনের অবৈধভাবে মৎস্যশিকারের অভিযোগ করে আসছে এ অঞ্চলের বিভিন্ন দেশ। তাই এবারের জোট করার পেছনের কারণ চীন হলেও তাদের জোটে লিখিতভাবে চীনের নাম উল্লেখ নেই। তবে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মুলত চীনকে দমন করতেই এই জোট করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মার্কিন কর্মকর্তা ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ফিন্যান্সিয়াল টাইমসকে বলেন, ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে গোয়েন্দা তথ্য পেতে বাণিজ্যিক উপগ্রহ-নজরদারি সেবায় তহবিল দেবে কোয়াড দেশগুলো।

মঙ্গলবার তারা জানিয়েছে, অবৈধ মৎস্যশিকার থেকে শুরু করে বিভিন্ন বেআইনি তৎপরতা শনাক্ত করতে সহায়তা করবে দ্য ইন্দো-প্যাসিফিক পার্টনারশিপ ফর ম্যারিটাইম ডোমেইন ওয়ারনেস (আইপিএমডিএ) নামের এই পরিকল্পনা।

রেডিও তরঙ্গ ও রাডার সিগনালের মাধ্যমে ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে নৌপর্যবেক্ষণ করবে কোয়াড। যদি কোনো নৌকা তার স্বয়ংক্রিয় তথ্য ব্যবস্থা (এআইএস) বন্ধ করেও রাখে, তবুও সেটিকে শনাক্ত করা যাবে নতুন এই পদক্ষেপের মাধ্যমে।

এভাবে কোনো নৌযান শনাক্ত হওয়ার পর তা আঞ্চলিক নজরদারি কেন্দ্র নেটওয়ার্কে শেয়ার করা হবে। ভারত, সিঙ্গাপুর, ভানুয়াতু ও সলোমন দ্বীপপুঞ্জে আঞ্চলিক নজরদারি কেন্দ্র থাকবে।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের দক্ষিণপূর্ব এশিয়া বিষয়ক ফেলো গ্রেগ পোলিং বলেন, আইপিএমডিএ খুবই উচ্চাভিলাষী একটি প্রকল্প। ভারত মহাসাগরীয় উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য এটি ব্যাপক সহায়ক হবে। কারণ সাগরে নজরদারি করার মতো উপকরণ এসব দেশের নেই।

তিনি বলেন, এ পদক্ষেপে অবৈধ মৎস্যশিকার ও চীনের নৌআইন লঙ্ঘনের ঘটনা পর্যবেক্ষণ করা সহজ হবে। এতে খরচও কম পড়বে। আঞ্চলিক দেশগুলোর নজরদারি সক্ষমতাও বাড়িয়ে দেবে প্রকল্পটি।

চীনের দূরবর্তী নৌবহরে তিন হাজার নৌযান আছে। যা বিশ্বের যে কোনো দেশের তুলনায় বেশি। চীনা সরকারের ভর্তুকিতে চলা এসব নৌযান বৈশ্বিক অবৈধ মৎস্যশিকার সূচকে সবার ওপরে। কোনো সরকারের অনুমোদন না নিয়েই সেই দেশের জলসীমায় বেআইনিভাবে মাছ শিকার করে এসব নৌকা।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অবৈধ মাছ শিকারের দায়ে ভানুয়াতু, পালাউ, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়ায় চীনা নৌকা আটক করা হয়েছিল। কেবল মৎস্যশিকার দিয়ে চীনা নৌবহরের ঔদ্ধত্য থেমে নেই।

প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর দক্ষিণ চীন সাগরে এসব নৌকাকে আধাসামরিক বহর হিসেবে ব্যবহার করার অভিযোগ রয়েছে।

দেশটিভি/এমএস
দেশ-বিদেশের সকল তাৎক্ষণিক সংবাদ, দেশ টিভির জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখতে, সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল:

এছাড়াও রয়েছে

ইমরান খানকে সংসদ সদস্য পদের অযোগ্য ঘোষণা

কংগ্রেসের নতুন সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে

যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে পুলিশ কর্মকর্তাসহ পাঁচজন নিহত

ঘুষ নেওয়ার দায়ে সু চির আরও ৩ বছরের কারাদণ্ড

আয়ারল্যান্ডের পেট্রোল স্টেশনে বিস্ফোরণ, নিহত ১০

থাইল্যান্ডে শিশু দিবাযত্নকেন্দ্রে হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮

নজিরবিহীন ধাক্কার কবলে পড়ছে দক্ষিণ এশিয়া : বিশ্বব্যাংক

থাইল্যান্ডে দিবাযন্ত্র কেন্দ্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৩৪

সর্বশেষ খবর

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ইউল্যাব’ শিক্ষার্থীদের ফটোওয়াক

ভান্ডারিয়া ও মঠবাড়িয়ায় পৌর প্রশাসক নিয়োগ

এক্সিম ব্যাংক কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত

সিলেটে ভোক্তা অধিদপ্তর ও সিসিএস-এর সচেতনতামূলক সভা