পরিবেশ

দুর্যোগ সহনীয় অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়নের পরামর্শ

ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’

ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞ না চালালেও ব্যাপক ক্ষতি ঘটিয়েছে উপকূলীয় অঞ্চলে। প্রাণ হারিয়েছেন ২৬ জন, আহত অর্ধশতকেরও বেশী মানুষ। ঘর-বাড়ি, ভিটে-মাটি হারিয়ে উপকূলের লাখ লাখ মানুষ এখন খোলা আকাশের নিচে জীবন যাপন করছেন।

এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় দুর্যোগ সহনীয় অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি একটি মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়নের পরামর্শ দিয়েছেন দেশের বিশেষজ্ঞরা। আর দুর্যোগ পরবর্তী ক্ষয়ক্ষতি কাটাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

কয়েকশ' কিলোমিটার বাঁধ ভেঙে বহু গ্রাম প্লাবিত হয়ে ভেসে গেছে বহু গবাদি পশু-পাখি, মাছের ঘের, নষ্ট হয়েছে হাজার হাজার একর ফসলী জমি, রাস্তাঘাট।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বাতাসের বেগ কম হলেও রোয়ানুর কারণে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসই ক্ষতি করেছে বেশি। তবে এবার ব্যাপক প্রচারণা দিনের বেলায় ঘূর্ণিঝড়ের আঘাত ও উপকূলবাসীর সচেতনতার কারণে ক্ষয়ক্ষতি কম হয়েছে বলে মনে করছেন তারা।

সবচেয়ে কাছ দিয়ে অতিক্রম করায় ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর আঘাতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে চট্টগ্রাম। নিহত ২৬ জনের মধ্যে ১২ জনই মারা গেছে এ জেলায় এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ৫ লক্ষাধিক মানুষ, ভেসে গেছে ৪০ হাজারের ওপর গবাদি পশু-পাখি, ভেঙে আর উপড়ে গেছে অসংখ্য গাছপালা। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় ৩ হাজার একর ফসল, প্রায় দুইশো কিলোমিটার রাস্তা, প্রায় একশো কিলোমিটার বাঁধ। অনেক এলাকা এখনো বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন।

চট্টগ্রামের তুলনায় কম হলেও উপকূলীয় সব জেলায় ক্ষয়ক্ষতির ধরণ একই রকম। লাখ লাখ মানুষ হাজার হাজার ঘরবাড়ি, গবাদি পশু, ফসলি জমি, বাঁধ, রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্ত। তবে বহু জায়গায় ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধার, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সহায়তা এখনো পৌঁছেনি বলে অভিযোগ ক্ষতিগ্রস্তদের।

আর যেসব জায়গায় ত্রাণ দেয়া হচ্ছে তাও পর্যাপ্ত নয়। তাছাড়া লবণাক্ত পানির প্রবেশ করায় এরইমধ্যে রোগ-বালাই দেখা দিয়েছে এসব জায়গায়।

এ অভিযোগ নাকচ করা হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। আর আগে থেকে প্রস্তুতি থাকায় এবার ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে ঝড়-জলোচ্ছ্বাসে ক্ষয়ক্ষতি কম হয়েছে উল্লেখ করে জানানো হয় যতোটুকু ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা উপকূলীয় বাঁধগুলো ঠিক না থাকার কারণে।

এ পরিস্থিতি মোকাবেলায় দুর্যোগ সহনীয় অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি একটি মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়নের পরামর্শ দিয়েছেন দেশের বিশেষজ্ঞরা। আর দুর্যোগ পরবর্তী ক্ষয়ক্ষতি কাটাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

শনিবার দুপুরে দুর্বল হয়ে উপকূল অতিক্রম শুরু করে ঘুর্ণিঝড় রোয়ানু। কয়েক ঘন্টায় দেশের পুরো উপকূলীয় অঞ্চল লণ্ডভণ্ড করে দিয়ে যায়। ২৫টিরও বেশি বেড়িবাঁধ ভেঙে গিয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হয়েছে বিস্তীর্ণ এলাকা।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, অতীতে ঘুর্ণিঝড় সিডর, আইলার পর এসব বাঁধে বড় ধরনের সংস্কারকাজ না হওয়ায় মহাসেন এবং সবশেষ রোয়ানুর তোড়ে সেগুলোর ব্যাপক ক্য়ক্ষতি হয়। তীব্র জলের তোড়ে গ্রামের পর গ্রাম ভেসে যায়।

এসব বাঁধ যে দুর্যোগ সহনীয় নয় সে ব্যাপারে যুক্তি তুলে ধরেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী রিপন কর্মকার।

আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন ঝড়-জলোচ্ছ্বাস, জলাবদ্ধতা মোকাবেলায় বাঁধ নির্মাণের চেয়ে দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি-ঘর নির্মাণের ওপর গুরুত্ব দেন বিশেষজ্ঞরা।

একই সঙ্গে এসব কাজে পেশাদার কর্মকর্তা নিয়োগ এবং একটি মাস্টার প্ল্যান প্রণয়নের পরামর্শ দেন ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্টস্ বাংলাদেশের সভাপতি সাঈদ এম আহমেদ।

এদিকে, গতকাল চট্টগ্রামে আগে থেকে প্রস্তুতি থাকায় ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে ঝড়-জলোচ্ছাসে ক্ষতি কম হয়েছে-সরকারের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি, পুলিশ, বিডিআর ও দমকল বাহিনীর আন্তরিক প্রয়াসে প্রাণহানি আর সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবের পর রোববার রাতে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে 'জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সভায়' দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এসব কথা বলেন।

ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে সভায় দুর্গতদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিতে আর পর্যাপ্ত ত্রাণ বরাদ্দের দাবি জানান স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। জলোচ্ছাসে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধগুলোর ব্যাপারেও আলোচনা হয় সভায়।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

ঢাকাসহ আশপাশের অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশ

উপকূলীয় ৯ জেলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত

আজ থেকে ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ

রাইট লাইভলিহুড এওয়ার্ড পেল পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গ

বিশ্ব নদী দিবস আজ

রবিবার থেকে দেশে বৃষ্টিপাত বাড়বে

বিশ্বের অনিরাপদ নগরীর তালিকায় পঞ্চম ঢাকা

তাপমাত্রা স্বাভাবিক, হালকা-মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে

সর্বশেষ খবর

ফকরুলসহ বিএনপির ২১ নেতার আগাম জামিন আবেদন

১০ হাজার ৭৮৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ

আশুলিয়ায় নিটিং ফ্যাক্টরিতে আগুন, ৭ কোটি টাকার ক্ষতি

দক্ষিণ আফ্রিকার হেড কোচ হলেন মার্ক বাউচার