নির্বাচন

বসুরহাট পৌর নির্বাচন

সুষ্ঠু নির্বাচন চেয়ে ওবায়দুল কাদেরের ভাই আন্দোলনে

সুষ্ঠু নির্বাচন চেয়ে ওবায়দুল কাদেরের ভাই আন্দোলনে
সুষ্ঠু নির্বাচন চেয়ে ওবায়দুল কাদেরের ভাই আন্দোলনে

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন দাবিতে এবং জেলা প্রশাসকের প্রত্যাহার চেয়ে আন্দোলন করেছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা। তাঁর এমন আন্দোলনে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

পৌরসভার ভোটার ও সর্বমহলে প্রশ্ন উঠেছে সুষ্ঠু নির্বাচন চেয়ে ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা কেন আন্দোলনে নেমেছেন?

এদিকে ক্ষমতাশীন দলের প্রার্থী অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন দাবি করলেও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ মোশাররফ হোসাইন বলেছেন নির্বাচনী পরিবেশ এখন পর্যন্ত ভালোই আছে।

গত রোববার (৩ জানুয়ারি) দুপুর থেকে বসুরহাট মুজিব চত্তরে আবদুল কাদের মির্জার অনুসারীরা নির্বাচনী প্রতীকের শ্লোগান ছেড়ে জেলা প্রশাসকের অপসারণ, সুষ্ঠ নির্বাচন, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, মন্ত্রীর নাম ভাঙ্গিয়ে টেন্ডারবাজি ও নিয়োগ বাণিজ্যের বিচারের দাবিতে সড়ক অবরোধ ও অবস্থান ধর্মঘট করেছে। এরআগে তিনি মুজিব চত্তরে বক্তব্যকালে উল্লেখিত দাবিগুলো তোলেন এবং নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী, ফেনীর সংসদ সদস্য নিজাম হাজারী ও সন্দ্বীপের সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেন।

আবদুল কাদের মির্জার ওই বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে ভোটারসহ সর্ব মহলে দেখা দেয় মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী জানান, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কেন সুষ্ঠ নির্বাচন দাবি করেছেন এটা গভীর চিন্তার বিষয়। তিনি জানান, নির্বাচনী পরিবেশ এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক আছে। আমি এখনও গণসংযোগে আছি। ভোটারদের যতেষ্ট সাড়া পাচ্ছি। কোন ধরণের কোন প্রতিবন্ধকতা নেই।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ মোশাররফ হোসাইন স্বাভাবিক নির্বাচনী পরিবেশের কথা স্বীকার করে জানান, এখন পযন্ত সবই ভালো আছে। বিগত নির্বাচনে জনগন ভোট দিতে পারে নাই, এ নির্বাচনে ভোট দিতে পারবে কিনা সেই আশঙ্কা করছি। তিনি জানান, ইভিএমের প্রতি জনগন এখনো সচেতন হতে পারেনি। ভোটারদের ইভিএমের প্রতি সচেতন করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহব্বান জানান তিনি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে আবদুল কাদের মির্জা অভিযোগ তুলে বলেন, পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে অস্ত্র এসেছে এখানে, কাউন্সিলরদের টাকা দেওয়া হয়েছে নির্বাচনে প্রভাব খাটানোর জন্য। এ নিয়ে অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছেন তিনি।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম বলেন, একজন প্রার্থী হিসেবে আবদুল কাদের মির্জা অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন দাবি করাটা স্বাভাবিক। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র এবং ভোটের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই এ দেশের মানুষ গণতন্ত্র এবং ভোটের অধিকার ফিরে পেয়েছে। আমরা চাই জনগন তাদের স্বাধীন ভোটাধিকার প্রয়োগ করুক। / ভোকা

দেশটিভি/এমএ
দেশ-বিদেশের সকল তাৎক্ষণিক সংবাদ, দেশ টিভির জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখতে, সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল:

এছাড়াও রয়েছে

৫৭টি জেলা পরিষদে নির্বাচন চলছে

আরআরএফ'র নতুন সভাপতি বাদল, সম্পাদক বাবলু

ইভিএমে ভোট জালিয়াতি হবে না, যাচাই করেই সিদ্ধান্ত: সিইসি

উপ-নির্বাচনে জামানত ২০ হাজার

জেলা পরিষদের ভোটার তালিকা প্রণয়নের নির্দেশ ইসির

ইভিএমে ত্রুটি আছে, দাবি সুজনের

সর্বোচ্চ ১৫০ আসনে ইভিএম: ইসি

গাইবান্ধা-৫ আসনে উপ-নির্বাচন ১২ অক্টোবর

সর্বশেষ খবর

শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করলেন মোস্তাফিজুর রহমান

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘ইউল্যাব’ শিক্ষার্থীদের ফটোওয়াক

ভান্ডারিয়া ও মঠবাড়িয়ায় পৌর প্রশাসক নিয়োগ

এক্সিম ব্যাংক কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত