অর্থনীতি

মঙ্গলবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫ (১৩:৪৯)

অন্তঃসত্ত্বা, ৫ বছর বয়সী সন্তানের মায়েরা পাচ্ছেন নগদ অর্থ: একনেক

একনেক

পাঁচ লাখ দরিদ্র অন্তঃসত্ত্বা নারী ও শূন্য থেকে পাঁচ বছর বয়সী সন্তানের মা যারা আর্থিকভাবে অসচ্ছল তাদেরকে এখন থেকে নগদ অর্থ প্রদান করবে সরকার।

মঙ্গলবার রাজধানীতে একনেক বৈঠকে ‘ইনকাম সাপোর্ট প্রোগ্রাম ফর দ্যা পুরেস্ট (আইএসপিপি)’ নামক একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়।

পরে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, একনেক চেয়ারপারসন প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সভায় মোট ৪৪৯০ কোটি টাকার ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়।

মোট ব্যয়ের মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ১৬৩৬ কোটি টাকা, প্রকল্প সাহায্য ২৮৪৭ কোটি টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৭ কোটি টাকা। অনুমোদিত ৮টি প্রকল্পের মধ্যে ৬টি নতুন ও ২টি পুরাতন।

দেশের রংপুর ও ঢাকা বিভাগের ৭টি জেলার ৪২টি উপজেলার ৪৪৩টি ইউনিয়নের ১৬ লাখ পরিবার থেকে এই ৫ লাখ দুস্থ নারী বাছাই করা হবে। মূলত: দরিদ্র মায়েদের দারিদ্র্য নিরসনের পাশাপাশি তাদের সন্তানদের স্বাস্থ্য ও পুষ্টির বিষয়টি নিশ্চিত করতেই সরকার এ নগদ অর্থ প্রদানের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বলে জানান তিনি।

এতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ২৩৭৮ কোটি টাকা। এরমধ্যে সরকার দিচ্ছে ৩৮ কোটি টাকা। বাকি ২ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা প্রকল্প সাহায্য হিসেবে বিশ্বব্যাংক ঋণ সহায়তা দিবে –বলেন তিনি।

স্থানীয় সরকার বিভাগ এপ্রিল ২০১৫ থেকে জুন ২০২০ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত করবে— প্রকল্প এলাকা নির্বাচনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর দারিদ্রতা ম্যাপকে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারি, জামালপুর, শেরপুর ও ময়মনসিংহ এ সাত জেলায় দারিদ্র্যের হার ৩৫ ভাগেরও বেশি।

মন্ত্রী বলেন, এসব এলাকায় অপুষ্টির হারও দেশের অন্যান্য এলাকার তুলনায় অনেক বেশি, প্রকল্প এলাকা বাছাইয়ে এ বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। তবে পর্যায়ক্রমে দেশের ৬৪টি জেলাকেই এ প্রকল্পের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

এ প্রকল্পের আওতায় নগদ অর্থ কিভাবে বিতরণ করা হবে–এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এ সময় বলেন, দরিদ্র অন্তঃসত্ত্বা নারী গর্ভকালীন মোট ৪ বার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হবে। প্রতিবার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্যে তাদেরকে ২০০ টাকা করে নগদ অর্থ দেয়া হবে। অপরদিকে শূন্য থেকে ২৪ মাস বয়সী দরিদ্র শিশুদের প্রতিমাসে একবার শরীর বৃদ্ধির পরীক্ষা করে নগদ ৫০০ টাকা প্রদান করা হবে। এক্ষেত্রে ২৫ থেকে ৬০ মাস বয়সী শিশুদের তিন মাসে একবার শরীর বৃদ্ধির পরীক্ষা করে নগদ ১০০০ টাকা দেয়া হবে। এছাড়াও অন্তঃসত্ত্বা নারী ও মায়েরা প্রতিমাসে অনুষ্ঠিত শিশু পুষ্টি ও উন্নত শিক্ষা সংক্রান্ত কর্মশালায় অংশগ্রহণ করলে প্রতিবার ৫০০ টাকা করে পাবেন।

মন্ত্রী এ সময় আরো বলেন, এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে শিশু ও নারী মৃত্যুহার যেমন হ্রাস পাবে একই সাথে শিশু ও নারী পুষ্টিও নিশ্চিত হবে।

এদিকে, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ ও গাজীপুরের ৮টি উপজেলায় গ্যাস সঞ্চালন লাইন স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এজন্য একনেক সভায় ৯৭৯ কোটি টাকার একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়।

মোট ব্যয়ের মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ৪৬৫ কোটি টাকা। প্রকল্প সাহায্য হিসেবে জাপানি উন্নয়ন সংস্থা জাইকা ৫০৭ কোটি টাকা দিবে। বাকি ৭ কোটি সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে যোগান দেয়া হবে। এ প্রকল্পের আওতায় ৩০ ইঞ্চি ব্যাসের ৬৬ কি.মি. দীর্ঘ পাইপ লাইন নির্মাণ করা হবে। এর ফলে বিদ্যমান ও নির্মাণাধীন বিদ্যুৎ কেন্দ্র, সার কারখানা ও অন্যান্য শিল্প কারখানায় নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ থাকবে বলে একনেক সভায় জানানো হয়।

গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড (জিটিসিএল) জুলাই ২০১৪ থেকে জুন ২০১৯ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত করবে বলে জানান মন্ত্রী।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

পোশাক কারখানা বন্ধ রাখার অনুরোধ বিজিএমইএর

জুন পর্যন্ত ক্রেডিট কার্ডে জরিমানা নয়

করোনার মধ্যেও বাংলাদেশের শক্তিশালী প্রবৃদ্ধির আশা এডিবির

১১ এপ্রিল পর্যন্ত শেয়ারবাজার বন্ধ

আজ থেকে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব ঋণের এক অঙ্কের সুদহার

ইইউভুক্ত দেশসমূহে জিএসপি সুবিধা বাতিলের প্রস্তাব খারিজ

আজ থেকে সীমিত সময়ের জন্য ব্যাংক চালু

বিশ্ব অর্থনীতি চাঙ্গা করতে সহায়তার ঘোষণা দিল জি-২০

সর্বশেষ খবর

মানুষ ঘরে না থাকলে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়

কাশ্মীর সীমান্তে সংঘর্ষে ৫ ভারতীয় সেনা নিহত

মুসল্লিদের ঘরে নামাজ পড়ার নির্দেশ

ফার্মেসি ছাড়া সন্ধ্যার পর সব দোকান-বাজার বন্ধ