অর্থনীতি

বুধবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ (১৮:২২)

মূসক-সম্পূরক শুল্ক আইন পর্যালোচনায় কমিটি গঠনের নির্দেশ

আবুল মাল আবদুল মুহিত

মূল্য সংযোজন কর (মূসক) ও সম্পূরক শুল্ক আইন পর্যালোচনায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের সমন্বয়ে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বুধবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে নতুন মূসক আইনের ওপর আয়োজিত সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এনবিআরের একজন জ্যেষ্ঠ সদস্য এ কমিটির চেয়ারম্যান হবেন আর দুই জন কো-চেয়ারম্যানের মধ্যে একজন ব্যবসায়ী প্রতিনিধি থাকবেন। নতুন আইনে কোনো কিছু বিয়োজন বা অন্তর্ভূক্ত করা যায় কি-না তা পর্যালোচনা করে একটি সুপারিশ দাখিল করবেন তারা।

নতুন আইনের প্রেক্ষাপট ও যৌক্তিকতা তুলে ধরে অর্থমন্ত্রী বলেন, মূসক আইন ব্যবসায়ীদের জন্য খুব ভাল। এ আইনের কারণে ব্যবসায়ীদের দুই বার হিসাব করতে হয় না। একবার হিসাব করলে চলে।

তিনি আরো বলেন, ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যথেষ্ট পরামর্শ করে ২০১২ সালে মূসক আইন পাস করা হয়। এরপরও ব্যবসায়ীরা এ আইনের কিছু অংশের বিরোধীতা করছেন। আর ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন কিছু সরকার করবে না।

পরে এনবিআর চেয়ারম্যান মো. গোলাম হোসেন কমিটি গঠনের ঘোষণা দিয়ে বলেন, বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশেনের (এফবিসিসিআই) সঙ্গে পরামর্শ করে শিগগিরই এটি করা হবে।

এর আগে সেমিনারে এনবিআরের সদস্য (মূসকনীতি) ও ভ্যাট অনলাইন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, নতুন মূসক আইনে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। তবে এ আইন দ্বারা উঠতি বা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভবনা থেকে যায় এ কারণে এ আইন কার্যকর করার আগে পর্যালোচনা করার প্রয়োজন রয়েছে।

নতুন মূসক আইন পর্যালোচনায় একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠনের প্রস্তাব দিয়ে তিনি বলেন, নতুন আইনে ব্যবসায়ীদের প্রস্তাবের প্রতিফলন থাকতে হবে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান বলেন, নতুন মূসক আইনে সরকার বা ব্যবসায়ীদের মতামত সম্পূর্ণভাবে প্রতিফলিত হয়নি। তবে ব্যবসায়ীদের বড় ইস্যুগুলোর বেশিরভাগ স্থান পেয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এ আইনের মাধ্যমে সঞ্চয়, বিনিয়োগ, জাতীয় আয়, প্রবৃদ্ধি এবং আমাদের আত্মনির্ভরশীলতার সক্ষমতা বিবেচনায় নিয়ে একটি সমন্বিত করকাঠামো ব্যবস্থা গড়ে তোলার প্রয়াস নেয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলামও আইনটি কার্যকর করার আগে একটি পর্যালোচনা কমিটি করার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ২০১৩ সালের বিভীষিকাময় সন্ত্রাসের পরও দেশে একটি মজবুত অর্থনীতি টিকে আছে। এর পুরো অবদান এদেশের ব্যবসায়ীদের।

তিনি বলেন, ব্যবসায়ীরা যাতে নির্বিঘ্নে ব্যবসা করতে পারেন এমন আইন করতে হবে। ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন আইন সরকার করবে না।

সেমিনারে এফবিসিসিআই সভাপতি কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ ব্যবসায়ীদের পক্ষে সহনীয় হয়, এমন সামঞ্জস্যপূর্ণ আইন করার যৌক্তিকতাগুলো তুলে ধরেন।

এদিকে, এ আইনের কিছু অংশের বিরোধীতা করে সম্প্রতি এফবিসিসিআই অর্থমন্ত্রীকে চিঠি দেয়।

এছাড়াও রয়েছে

দেশে ৩৫ বিলিয়ন ডলারের রেকর্ড রিজার্ভ

একলাফে স্বর্ণের দাম বাড়লো প্রায় ৬ হাজার টাকা

বাংলাদেশকে ৯৭ শতাংশ শুল্কমুক্ত সুবিধা দিল চীন

ব্যাংকে লেনদেন ১০টা থেকে ২টা পর্যন্ত, রেড জোনে শাখা বন্ধ

৪৬ হাজার কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস

কালো টাকা সাদার করার সুযোগ সৎ করদাতাদের প্রতি অন্যায়: সিপিডি

বাজেটে যেসব পণ্যের দাম কমবে

মন্ত্রিসভায় বাজেট অনুমোদন

আরও খবর

  • বিশ্বে করোনায় মৃত পাঁচ লাখের বেশি

    বিশ্বে করোনায় মৃত পাঁচ লাখের বেশি

  • করোনায় ফেনী জেলা আ.লীগ সভাপতির মৃত্যু

    করোনায় ফেনী জেলা আ.লীগ সভাপতির মৃত্যু

  • উইন্ডোজ ১০ এর নতুন আপডেটে ত্রুটি: রিস্টার্স্ট নিচ্ছে পিসি

    উইন্ডোজ ১০ এর নতুন আপডেটে ত্রুটি: রিস্টার্স্ট নিচ্ছে পিসি

  • করোনার টিকা আবিষ্কারের কোনও নিশ্চয়তা নেই

    করোনার টিকা আবিষ্কারের কোনও নিশ্চয়তা নেই

সর্বশেষ খবর

যত্রতত্র পশুরহাটের অনুমতি দেয়া যাবে না: ওবায়দুল কাদের

টাকায় করোনা পরীক্ষা কোনো দেশে নেই : রিজভী

মিয়ানমারে খনিতে ভূমিধসে নিহত ৫০, আটকা ২০০ শ্রমিক

দেশে করোনা আক্রান্ত দেড় লাখ ছাড়াল