আদালত

বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ (১৬:০৬)

প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি

বিচারপতির প্রতি খালেদার আইনজীবীদের অনাস্থা

খালেদা জিয়া

তিন আসনে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রিট আবেদনের শুনানিতে বিচারপতির প্রতি অনাস্থা জানিয়েছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বাধীন একক বেঞ্চে এ শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

তবে খালেদার জিয়ার আইনজীবীরা বিচারপতির প্রতি অনাস্থা জানিয়ে আদালত থেকে বেরিয়ে যান। পরে সোমবার পর্যন্ত আদালত মুলতবি ঘোষণা করা হয়।

এর ফলে খালেদা জিয়া নির্বাচন করতে পারবেন কি পারবেন না তা সোমবার পর্যন্ত ঝুলে থাকল।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী ও বদরুদ্দোজা বাদল।

গতকাল প্রধান বিচারপতি খালেদা জিয়ার তিনটি রিট শুনানির জন্য হাইকোর্ট বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বে একক বেঞ্চ গঠন করে দেন।

মামলার সব নথি বিকালেই ওই বেঞ্চে পাঠানো হয়।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় শুনানির জন্য সময় নির্ধারণ করে হাইকোর্টে বেঞ্চ।

গতকালের তথ্য:

প্রার্থিতা ফিরে পেতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রিটের নথিপত্র হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে ফেরত পাঠানো হয়। বুধবার প্রধান বিচারপতির দপ্তর থেকে ওই নথিপত্র ফেরত পাঠানো হয়।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও স্পেশাল অফিসার মো. সাইফুর রহমান বলেন, বিস্তারিত আদেশ লিখতে নির্দেশ দিয়ে মামলার নথিপত্র সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে পাঠানো হয়েছে।

মঙ্গলবার তিন আসনে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে করা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৩টি রিটের ওপর বিভক্ত আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ খালেদা জিয়ার মনোনয়ন বাতিলে নির্বাচন কমিশনের আদেশ স্থগিত করে রুল জারি করে।

তবে বেঞ্চের অপর বিচারপতি মো. ইকবাল কবির এ আদেশের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন।

আদেশের পর খালেদা জিয়ার আইনজীবী কায়সার কামাল সাংবাদিকদের বলেন, বেঞ্চের প্রিজাইডিং জজ খালেদা জিয়াকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ দিতে নির্দেশ দিয়েছেন তবে অপর বিচারপতি দ্বিমত পোষণ করেছেন।

এখন নিয়মানুসারে আবেদনগুলো প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হবে। তিনি বিষয়গুলো নিষ্পত্তির জন্য অন্য বিচারপতির কাছে পাঠাবেন।

এর আগে শুনানি শেষে গত সোমবার বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ বিষয়ে আদেশের জন্য গতকাল দিন ঠিক ছিল।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী। অপরপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

শুনানির সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন- ইউরোপীয় ইউনিয়নের ‘ইলেকশন এক্সপার্ট মিশনের’ আইন বিশেষজ্ঞ ইরিনি মারিয়া গোনারি।

গত রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় তার পক্ষে পৃথক তিনটি রিট করা হয়।

গত ৮ ডিসেম্বর প্রার্থিতা ফিরে পেতে খালেদা জিয়ার করা আপিল নামঞ্জুর করে দেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। যা পরবর্তীতে হাইকোর্ট পযর্ন্ত গড়ায়।

গত ২ ডিসেম্বর যাচাই-বাছাইয়ের সময় খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

পরে তাদের এ সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশনে প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপিল করেন খালেদার আইনজীবীরা।

তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও ৭ আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন।

এছাড়াও রয়েছে

সারা দেশে ৩০ কার্যদিবসে প্রায় ৪৫ হাজার আসামির জামিন

করোনায় দেশে প্রথম বিচারকের মৃত্যু

চিকিৎসা না পেয়ে রোগীর মৃত্যু ফৌজদারি অপরাধ

ভার্চুয়াল কোর্ট : ২০ কার্যদিবসে ৩৩ হাজার আসামির জামিন

রিমান্ড শুনানি হবে ভার্চুয়াল আদালতে: সুপ্রিমকোর্ট

ভার্চুয়াল আদালতে ৫ দিনে সাড়ে ৬ হাজার জামিন

আবরার হত্যা মামলায় জিয়নের জামিন নামঞ্জুর

বাস ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে রিট

আরও খবর

  • রাজধানীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ যুবক নিহত

    রাজধানীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ যুবক নিহত

  • লঞ্চে যৌন হয়রানি থেকে বাঁচতে কিশোরীর নদীতে ঝাঁপ

    লঞ্চে যৌন হয়রানি থেকে বাঁচতে কিশোরীর নদীতে ঝাঁপ

  • টিকে রইল বার্সেলোনা

    টিকে রইল বার্সেলোনা

  • নোয়াখালীতে আ.লীগ নেতাকে গুলি

    নোয়াখালীতে আ.লীগ নেতাকে গুলি

সর্বশেষ খবর

রিজার্ভ থেকে নিজেরাই প্রকল্পের জন্য ঋণ নিতে পারি

চলে গেলেন এন্ড্রু কিশোর

প্রকাশ্যে ‘বাহুবলি’ সিনেমার প্রথম দিনের শুটিংয়ের দৃশ্য

মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না