বিশেষ প্রতিবেদন

রবিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৭ (১৮:৫৯)

সাফল্য-ব্যর্থতা, সংকট-সুরাহায় নানা উদ্যোগের মধ্যদিয়েই শেষ হলো ২০১৭

সাফল্য-ব্যর্থতা, সংকট-সুরাহায় নানা উদ্যোগের মধ্যদিয়েই শেষ হলো ২০১৭

সাফল্য-ব্যর্থতা, সংকট আর সুরাহায় নানা উদ্যোগের মধ্যদিয়েই শেষ হচ্ছে আরো একটি বছর। বিদায় ২০১৭— ফেলে আসা বছরে আলোচনা-সমালোচনার পাশাপাশি রয়েছে উল্লেখযোগ্য কিছু অর্জনও।

মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংসতার শিকার হয়ে পালিয়ে আসা লাখ লাখ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ যেমন বিশ্বে ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছে।

তেমনি বিশ্ব সম্প্রদায়কে পাশে পেলেও রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে গলদঘর্ম হতে হচ্ছে সরকারকে। এদিকে, রাজনীতির মাঠ নিরুত্তাপ থাকলেও বছরজুড়ে প্রশ্নপত্র ফাঁস, পাঠ্যপুস্তকে ভুলত্রুটি আর দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি ঠেকাতে সরকারের ব্যর্থতাও স্পষ্ট। ধর্ষণ, নারী নির্যাতন, গুমসহ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি জনজীবনে হতাশা বাড়িয়েছে। তবে শক্তহাতে জঙ্গিবাদ দমন করে অর্থনৈতিক উন্নয়ের ধারা অব্যাহত রাখার কৃতিত্ব সরকারকে দিতে চান বিশিষ্টজনেরা।

রিপোর্ট: ঝর্ণা রায়।

বছরের প্রথম দিনে পাঠ্যবই নিয়ে এমন উৎসব বিশ্বের খুব কম দেশেই হয়ে থাকে। বরাবরের মতো ২০১৭ সালের শুরুটাও হয়েছিল নজরকাড়া উৎসব মুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে। তবে সেই আনন্দ অচিরেই ম্লান হয়ে যায় চকচকে মলাটের বইগুলোর ভেতরে শত শত ভুল আর সাম্প্রদায়িক মানসিকতার সুস্পষ্ট প্রকাশে। এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা ছিল বছরের শুরুতেই।

সে সমালোচনা শেষ হতে না হতেই সামনে চলে আসে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা। নিয়োগ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আর সবগুলো পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে বছরজুড়ে।

আর এ অপরাধ প্রতিরোধে সরকার চরম ব্যর্থ বলে অভিযোগ করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী।

এপ্রিল থেকেই শুরু হয় বৃষ্টি, ফলশ্রুতিতে ভয়াবহ বন্যা। পাহাড়ি ঢল আর বন্যায় দেশের ৬ জেলার হাওর পানির নিচে চলে যায়।

বিপর্যস্ত হয় ওইসব এলাকার ফসল ও জনজীবন। যা সামাল দিতে না দিতেই উত্তর -পশ্চিমাঞ্চলেও বন্যা শুরু হয়। ত্রিশটিরও বেশি জেলায় এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে ৫০ লাখ মানুষ দীর্ঘদিন পানিবন্দী জীবন কাটায়। আর দ্রব্যমূল্য চলে যায় নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

সবচেয়ে বড় ঘটনাটি ঘটে আগস্টে। মিয়ানমারের রাখাইনে হত্যা-নির্যাতনের শিকার হয়ে প্রাণ বাঁচাতে লাখ লাখ রোহিঙ্গা প্রাণ বাঁচাতে ছুটে আসে বাংলাদেশে। মানবতার দৃষ্টিকোণ থেকে তাদের আশ্রয় দেয় বাংলাদেশ। তবে নতুন করে আসা ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশের ওপর বড় ধরনের চাপে পরিণত হয়।

বিপন্ন দেশের অন্যতম এবং সবচেয়ে বড় পর্যটন কেন্দ্র কক্সবাজার। সেখানে বির্পযস্ত পরিবেশ।

রাখাইনে নির্যাতন বন্ধে আর রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টিতে সোচ্চার বাংলাদেশ প্রশংসা পেয়েছে মানবতার জন্য।

একপর্যায়ে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করে মিয়ানমার। এ ব্যাপারে দুদেশের একটি যৌথ কমিটিও হয়েছে।

এদিকে, রাশিয়া-চীনের মতো শক্তিশালী দেশের বিরোধিতা উপেক্ষা করে রাখাইনে নির্যাতন বন্ধে জাতিসংঘে একটি প্রস্তাবও পাস হয়।

এসবের পাশাপাশি ধর্ষণ, নারী নির্যাতন আর গুমের ঘটনা জনজীবনে হতাশা ছড়িয়েছে। সামাজিক অবক্ষয় আর বিচারে দীর্ঘসূত্রিতাকেই এরজন্য দায়ী বলে মনে করেন মানবাধিকার কর্মী অ্যারোমা দত্ত।

জঙ্গিবাদ দমন করে অর্থনৈতিক অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখাকে সরকারের অন্যতম সাফল্য হিসেবেও দেখেন সালমা খান।

তবে এ বছরে যে আয় বৈষম্য বেড়েছে আর দারিদ্রের হার থেমে রয়েছে তা থেকে উত্তরণে সরকারকে নজর দেয়ার তাগিদ তাদের।

বছরের প্রায় শেষভাগে দেশের জন্য একটি বড় অর্জন ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণটি বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া। যে ভাষণের মধ্য দিয়ে দেশের সর্বস্তরের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল, সে ভাষণ বিশ্ব স্বীকৃতি পাওয়ায় বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরো উজ্জ্বল হয়।

২০১৭ সাল জুড়েই রাজনৈতিক পরিস্থিতি ছিল অনেকটাই নিরুত্তাপ। রাজনীতির মাঠে সেভাবে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারেনি বিএনপি। ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, জেলা পরিষদ আর সবশেষ রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনও বড় ধরনের সহিসংতা ছাড়াই নির্বিঘ্নে পার করে আওয়ামী লীগ সরকার। আর এরমধ্য দিয়ে নতুন নির্বাচন কমিশন সম্পর্কেও জনমনে ইতিবাচক ধারনা তৈরি হয়েছে।

অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল পদ্মাসেতু। বিশাল এ প্রকল্পের কাজ শুরু আর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে বাংলাদেশ তার সক্ষমতার জানান দিয়েছে। আর এই সাফল্যের রেশ নিয়েই নতুন বছরের পথ চলা শুরু।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

১৯৭৫ সালের নভেম্বর: বাংলাদেশের ইতিহাসের উত্তাল- রক্তাক্ত কয়েকটি দিন

দেশের রাজনীতিতে গতি সঞ্চার হয়েছে সংলাপের মধ্য দিয়ে

শুরু হলো একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষণগণনা

ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনী জোট নয় –ড. কামালের এ বক্তব্য ব্যক্তিগত

সম্প্রচার আইনে অসঙ্গতি রয়েছে, মতামত গণমাধ্যম সংশ্লিষ্টদের

চলতি মাসেই জাতীয় বৃহত্তর ঐক্যের পূর্ণাঙ্গ রূপরেখা আসবে

সিনহার পদত্যাগে বাধ্যের অভিযোগটি তদন্ত দরকার, মনে করেন আইনজ্ঞরা

জাগিয়ে তুলতে হবে তরুণদের

সর্বশেষ খবর

অর্জিত স্বাধীনতা সমুন্নত রাখার প্রত্যয় ড. কামালের

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন প্রধানমন্ত্রীর

বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসের এক গৌরবের দিন

বিজয় দিবসে শ্রদ্ধায় মাথানবত পুরো জাতি