বিশেষ প্রতিবেদন

মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ (১৪:৪১)

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশেই ‘নিরাপদ অঞ্চল’ গড়ে তোলার প্রস্তাব ইতিবাচক

রোহিঙ্গাদের-নিজ-দেশেই-‘নিরাপদ-অঞ্চল’-গড়ে-তোলার-প্রস্তাব-ইতিবাচক

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশেই ‘নিরাপদ অঞ্চল’ গড়ে তোলার প্রস্তাব ইতিবাচক

রোহিঙ্গা সমস্যা নিরসনে বাংলাদেশের দেয়া মিয়ানমারের ভেতরেই "নিরাপদ অঞ্চল" গড়ে তোলার প্রস্তাবকে ইতিবাচক মনে করেন বিশ্লেষকরা।

তবে এজন্য জাতিসংঘ, ওআইসিসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করতে হবে বলে মনে করেন তারা। আর মিয়ানমারের সঙ্গে সংঘাতে না গিয়ে কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমেই বাংলাদেশকে এ সমস্যা সমাধান করা উচিত বলে পরামর্শ তাদের।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে শুরু হওয়া সহিংসতায় প্রায় এক হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা মারা গেছেন বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। সহিংসতার হাত থেকে বাঁচতে গত ১০ দিনে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গা।

কাজাখস্তানে ওআইসির সম্মেলনে এই রোহিঙ্গাদের নিজ ভূমিতে ফিরে যাওয়া ও তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও মুসলিম দেশগুলোকে কার্যকর উদ্যোগ নেয়ার তাগিদ দেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

সম্মেলনে ফাঁকে তুর্কী প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়িপ এরদোয়ানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে করেন।

বৈঠকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা যাতে সীমান্তের মিয়ানমার অংশে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে একটি "সেইফ জোনে" থাকতে পারে- সেবিষয়টি নিশ্চিত করতে আর্ন্তজাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশের এ ধরনের উদ্যোগ এই সংকট নিরসনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক সাবেক রাষ্ট্রদূত এম হুমায়ুন কবির।

তবে, তা করতে হলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে মিয়ানমারের সহিংসতার চিত্র আর এর ফলে বাংলাদেশের জন্য তৈরি হওয়ার সঙ্কটের কথা তুলে ধরার তাগিদ দেন তারা।

আর মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেই এ সমস্যার সমাধান হবে বলে মোটেও মনে করেন না আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন।

সেটা বাস্তবসম্মত হবে না উল্লেখ করে, কূটনৈতিকভাবেই এই সমস্যা নিরসনের পরামর্শ তার।

রোহিঙ্গারা যাতে নিজ ভূমিতে ফিরে গিয়ে নিরাপত্তা আর মর্যাদার সঙ্গে থাকতে পারে তা নিশ্চিত করতে শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের সব দেশকেই উদ্যোগ নিতে হবে বলে মনে করেন তারা।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

এরশাদের পতনে পর্দার আড়ালে যা ঘটেছিল

বিদেশে বৈধভাবে বিনিয়োগের সুযোগ দিলে অর্থপাচার কমবে, আশা হাফিজুরের

ঠাকুরপাড়ায় হিন্দু বাড়িগুলোতে হামলায় নেতৃত্ব দেয় জামাত-বিএনপি-জাপা

চলছে রাজনৈতিক দরকষাকষি, নির্বাচন করতে পারবে না জামাত

আরও খবর

ইপিএল: ষোলোটি ম্যাচ জিতেছে ম্যানচেস্টার সিটি

আরো একটি ট্রফি উঠলো রোনালদোর হাতে

সোমবার শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ যুব গেমস ২০১৮

শ্রবণ-বাক প্রতিবন্ধীদের জন্য আদালতে ইশারাভাষী নিয়োগের আহ্বান

কংগ্রেসের সভাপতির দায়িত্ব নিলেন রাহুল গান্ধী

শহীদ মুস্তাক একাদশের বিপক্ষে জিতেছে শহীদ জুয়েল একাদশ

শুক্রাবাদে নির্মাণাধীন ভবন থেকে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার রিমনের মৃতদেহ উদ্ধার

দেশ এখন নিজের পায়ে দাঁড়াতে শিখেছে: শেখ হাসিনা

ষোড়শ সংশোধনী: আন্তর্জাতিক আইনজীবী নিয়োগের অনুমতি চেয়ে আবেদন

বিশ্বের ব্যস্ততম বিমানবন্দর আটলান্টার হার্টসফিল্ড-জ্যাকসনের কার্যক্রম আংশিক বন্ধ