রোহিঙ্গা সংঘাত: রাজনৈতিক উদ্দেশ্যও থাকতে পারে

শনিবার, ০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ (১৮:৩৩)
রোহিঙ্গা-সংঘাত-রাজনৈতিক-উদ্দেশ্যও-থাকতে-পারে

প্রাণ বাঁচাতে রোহিঙ্গাদের ঢল

আন্তর্জাতিক কোনো চক্রের ইন্ধনে আঞ্চলিক একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতেই মিয়ানমারে রোহিঙ্গা ইস্যুতে সংঘাত বাধানো হয়েছে। এতে একদিকে মানবপাচার, মাদক, অস্ত্র পাচারের ব্যবসার স্বার্থ যেমন রয়েছে তেমনি ভিন্ন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যও থাকতে পারে।

এমন মত, নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টাও বলেন আন্তর্জাতিক চক্রের যোগসাজশের কথা। তাই মিয়ানমারকে জবাবদিহির মধ্যে আনা না গেলে বাংলাদেশে বাড়বে জঙ্গিবাদসহ নিরাপত্তা ঝুঁকি।

সংকটের শুরু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় থেকে। জাপানের আক্রমণের মুখে ১৯৪২ সালে প্রায় ৫০ হাজার রোহিঙ্গা প্রাণ বাঁচাতে ঢুকে পড়ে চট্টগ্রাম অংশে। এরপর পালিয়ে আসা এসব শরণার্থীদের ফিরিয়ে নেয়নি তৎকালীন বার্মা। রাখাইন রাজ্যের এ মুসলিম জনগোষ্ঠীর মানুষকে নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি মিয়ানমার বিভিন্ন সময়ে নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে লাখ লাখ রোহিঙ্গা।

মিয়ানমারের সঙ্গে সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে শরণার্থীদের সংখ্যা বাড়ায় জনসংখ্যার চাপে থাকা বাংলাদেশ নতুন সংকটে পড়েছে।

বিশ্লেষক হুমায়ুন কবীরের আশঙ্কা, সময়মতো ব্যবস্থা না নিলে- এর ভয়ংকর প্রভাব পড়তে পারে বাংলাদেশের ওপর।

এ অবস্থার পেছনে এই অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করার উদ্দেশ্য ও স্বার্থান্বেষী মহলের হাত থাকতে পারে বলে মনে করছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক মে. জে. আব্দুর রশিদ।

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামও স্বীকার করেন, যে এই অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করতেই একটি চক্র তৎপর হয়ে উঠেছে। যা বাংলাদেশ ও মিয়ানমার দু'দেশের জন্যই ক্ষতিকর।

তাই জয়েন্ট অপারেশনসহ যৌথ উদ্যোগে সমাধানের আভাস দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

সীমান্তের অরক্ষিত অংশগুলোয় জায়গায় টহল ও নিরাপত্তা জোরদারে সরকার উদ্যোগী হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

ঠাকুরপাড়ায় হিন্দু বাড়িগুলোতে হামলায় নেতৃত্ব দেয় জামাত-বিএনপি-জাপা

চলছে রাজনৈতিক দরকষাকষি, নির্বাচন করতে পারবে না জামাত

ভয়াল ১২ নভেম্বর: প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় কেড়ে নিয়েছিল ৫ লাখ মানুষের জীবন

শেষ ধাপে রয়েছে একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা-মামলার বিচার প্রক্রিয়া

উচ্চ পর্যায়ে ক্ষমতার অভিলাসেরই পরিণতি ৭ নভেম্বর

অভ্যুত্থান সফল না হওয়ার জন্য মোশাররফের অদূরদর্শিতাই দায়ী