জাতীয়

বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৯ (১৫:৪২)

দুর্যোগ মোকাবেলায় সচেতন হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

শেখ হাসিনা

যেকোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা ও প্রতিরোধ করণীয় সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতে প্রচার চালানোর নির্দেশ দিয়ে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ, অগ্নিকাণ্ডসহ সব ধরনের দুর্ঘটনা মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর ব্যবস্থার পাশাপাশি ব্যক্তিগত পর্যায়েও সবাইকে নিরাপত্তা বিষয়ে সচেতন হওয়ার কথা জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কাউন্সিলের সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, কোথায় কাজ করেন, কি করেন, সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থ্যা কতটুকু আছে নিজের ভেতরে সেই সচেতনতাটা আছে কিনা এ ব্যাপারে নিজেদেরও সেই প্রস্তুতি থাকতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে দুর্যোগ আসছে ঠিক, কিন্তু আমরা এটা সামাল দিচ্ছি এতটুকু একটা দেশে ১৬ কোটি মানুষের বসবাস। পশ্চিমা দেশে যদি এরকম জনসংখ্যা হয়, তারা সামাল দিতে পারবে কিনা সন্দেহ আছে।

তিনি বলেন, নির্দেশনাগুলি ব্যপকভাবে প্রচার করা দরকার— প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠান যেমন করবে, জাতীয়ভাবেও এটা করতে হবে যে, যেকোনো দুর্যোগ এলে করণীয়টা কী, প্রচার দরকার। মানুষকে সচেতন করা দরকার। মানুষকে জানানো দরকার।

দেশটি ঘনবসতি—এ কথা মাথায় রেখে উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অত্যন্ত ঘনবসতির দেশ সেটা মাথায় রেখে প্রতিটি পদক্ষেপ নিতে হবে।

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ ব্যবহার, গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার, দাহ্য পদার্থ ব্যবহারে মানুষের মধ্যে সচেতনা বাড়াতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আধুনিকায়ন মানুষকে আরাম দেয়, সুবিধা দেয়— আবার মাঝে মাঝে ঝুঁকিও সৃষ্টি করে। সেই ঝুঁকিটা যেন কমে। বিদ্যুৎ ব্যবহারে, গ্যাস সিলিন্ডার এমনকি কোনো দাহ্য পদার্থ ব্যবহারে মানুষের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে।

বাংলাদেশে প্রাকৃতিক দুর্যোগের পাশাপাশি অগ্নিকাণ্ডসহ বিভিন্ন ধরনের দুর্যোগের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, দুর্ঘটনা প্রতিরোধে কি কি ব্যবস্থা নিতে হবে সেটাও দেখা দরকার কারণ দুর্ঘটনারও প্রকৃতি বদলায়।

দুর্যোগ ও দুর্ঘটনা মোকাবিলা জনসচেতনতা সৃষ্টিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কী কী করণীয় সেগুলো প্রচার করা। দুর্যোগ এলে আমাদের করণীয় কী? সেই নির্দেশনাগুলো আছে সেগুলো ব্যাপকভাবে প্রচার করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, কিছুদিন আগে একটা বহুতল ভবনে আগুন লাগলো সেখানে যে বিষয়টা লক্ষ্যণীয় ছিল সেখানে যারা কর্মরত ছিল তাদের মধ্যে কোনো সচেতনতা ছিল না। এমনকি সেখানে যে ফায়ার এক্সিট আছে সেটাও তারা জানে না।

তিনি বলেন, অনেক ফায়ার এক্সিট বা জরুরি নির্গমন পথে ইন্টেরিয়র সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য অথবা সেখানে খালি জায়গায় যত মালামাল আছে সব সেখানে ফেলে রাখা হয়। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো দুর্যোগ প্রতিরোধের সঙ্গে সঙ্গে যারা ব্যবহার করছেন তাদের মধ্যে সচেতনতা থাকা প্রয়োজন। এই সচেতনতা সৃষ্টি একান্ত প্রয়োজন।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও বিভিন্ন দুর্ঘটনা মোকাবিলায় সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম ও দুর্যোগ-দুর্ঘটনা মোকাবিলায় সরকারের সক্ষমতার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

সভায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

রংপুরের পল্লী নিবাসে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দাফন সম্পন্ন

ঈদে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ২৯ জুলাই থেকে

‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

বিচারকের খাস কামরায় হত্যাকাণ্ড অনিরাপদ বাংলাদেশের চিত্র: রিজভী

উন্নয়নের জন্য মাস্টার প্ল্যান প্রস্তুতের ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কফিন রংপুরে নেয়া হয়েছে

কোরীয় প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ

প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে সিউলের সহায়তা কামনা করেছেন

সর্বশেষ খবর

পুরান ঢাকায় ভবন ধস

উচ্চ মাধ্যমিকে পাসের হার ৭৩.৯৩%

‘বেনাপোল এক্সপ্রেস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

কোচ নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি ভারতীয় বোর্ডের