জাতীয়

শনিবার, ০১ ডিসেম্বর, ২০১৮ (১০:১২)

মুক্তিযোদ্ধা বীরপ্রতীক তারামন বিবি না ফেরার দেশে

তারামন বিবি

বিজয় মাসের প্রথম দিনই চিরবিদায় নিলেন একাত্তরের রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা বীরপ্রতীক তারামন বিবি।

একাত্তরের রণাঙ্গনের বীরকন্যা বীরপ্রতীক তারামন বয়স হয়েছিল ৬২ বছর।

শনিবার প্রথম প্রহরে কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার শংকর মাধবপুর গ্রামে নিজের বাড়িতে এই মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু হয় বলে তার ছেলে আবু তাহের জানান।

দীর্ঘদিন ধরে বক্ষব্যাধিসহ নানা রোগে ভুগছিলেন তারামন বিবি। গত ৮ নভেম্বর রাজীবপুর থেকে নিয়ে ময়মনসিংহ সিএমএইচে (সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল) ভর্তি করা হয় তাকে। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা সিএমএইচে নিয়ে যাওয়া হয় তারামন বিবিকে। সেখানে চিকিৎসা শেষে শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে সপ্তাহখানেক আগে তাকে রাজীবপুরের বাড়িতে ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

স্বজনরা জানান, শুক্রবার রাত ১০টার দিকে তারামন বিবির শারীরিক অবস্থার আবারও অবনতি হয়। তখন তাকে রাজীবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ার হোসেন বাড়িতেই প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেন। কিন্তু রাত দেড়টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন তারামন বিবি।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন জানান, এ বীরকন্যা নামাজে জানাজা দুপুর ২টায় অনুষ্ঠিত হবে। পরে তাকে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

তার আগে স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা, বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক-পেশাজীবী ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এই মুক্তিযোদ্ধার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাবেন।

কুড়িগ্রামের শংকর মাধবপুরে ১১ নম্বর সেক্টরে কমান্ডার আবু তাহেরের অধীনে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন তারামন বিবি। মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা, তাদের অস্ত্র লুকিয়ে রাখা, পাকিস্তানিদের খবর সংগ্রহের পাশাপাশি অস্ত্র হাতে সম্মুখ যুদ্ধেও তিনি অংশ নিয়েছেন তিনি।

মুহিব হাবিলদার নামে এক মুক্তিযোদ্ধা কিশোরী তারামন বিবিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে নিয়ে গিয়েছিলেন রান্নার কাজে সহযোগিতার জন্য। পরে সেখানে তিনি অস্ত্র চালনা শেখেন।

একদিন দুপুরে খাওয়ার সময় পাকিস্তানি বাহিনী একটি গানবোট নিয়ে সেখানে হানা দেয়। তারামন বিবিও সেদিন সহযোদ্ধাদের সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নেন এবং শত্রুদের পরাস্ত করেন। এরপর বেশ কয়েকটি যুদ্ধে পুরুষ সহযোদ্ধাদের পাশাপাশি অস্ত্র হাতে লড়াই করেন এই বীর নারী।

মুক্তিযুদ্ধে সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৩ সালে তারামনকে বীর প্রতীক খেতাব দেয়। কিন্তু ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত তাকে খুঁজে বের করা সম্ভব হয়নি।

১৯৯৫ সালে ময়মনসিংহের একজন গবেষক প্রথম তাকে খুঁজে বের করেন। নারী সংগঠনগুলো তাকে ঢাকায় নিয়ে আসে। ওই বছর ১৯ ডিসেম্বর সরকারের পক্ষ থেকে তারামন বিবির হাতে সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়।

তারামন বিবির স্বামীর নাম আবদুল মজিদ। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

চকবাজারে আগুনে পুড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

চকবাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড: রাষ্ট্রপতি –প্রধানমন্ত্রীর শোক

শহীদ মিনারে রাষ্ট্রপতি -প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

অমর একুশ: বাংলা-বাঙালির আত্মপরিচয়ের উন্মেষ ঘটার দিন

চকবাজারে আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন করা হবে: কাদের

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার আহ্বান বিশিষ্টজনদের

বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল,৬৭ জনের মরদেহ উদ্ধার

বিদেশে গণমাধ্যমে চকবাজারে আগুনের ভয়াবহতার খবর, নিহত ৭৮

সর্বশেষ খবর

সুদানে জরুরি অবস্থা জারি

ভারত-পাকিস্তান বর্তমান পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর: ট্রাম্প

টাঙ্গাইল-চট্টগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪

শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রধানমন্ত্রীর