স্থানীয়/জনপদ

বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ (১৩:৩৯)

সাতক্ষীরায় কলেজছাত্র গৌতম হত্যায় ৪ জনের ফাঁসি

গৌতম সরকার

সাতক্ষীরায় চাঞ্চল্যকর কলেজ ছাত্র গৌতম হত্যা মামলায় চার আসামিকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত—একই সঙ্গে ছয় আসামিকে খালাস দিয়েছে।

রায় ঘোষণার সময় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি কাঁঠগাড়ায় উপস্থিত ছিল অপর দুইজন পলাতক রয়েছে।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজ সাদিকুল ইসলাম তালুকদার এ রায় ঘোষণা করেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার বহেরা গ্রামের আব্দুল আলিমের ছেলে আলী আহম্মেদ শাওন, ভাড়খালী গ্রামের আব্দুল করিম মোড়লের ছেলে শাহাদাৎ হোসেন, মহাদেবনগর গ্রামের রেজাউল শেখের ছেলে সাজু শেখ ও নাজমুল হোসেন।

খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- ওমর ফারুক, নূর আহম্মেদ মুক্ত, মহসিন আলী, কবিরুল ইসলাম মিঠু, জামসেদ আলী ও ফিরোজা খাতুন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১৩ ডিসেম্বর ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণের দাবিতে গৌতম হত্যা করে তারা।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঘোনা ইউনিয়নের মহাদেবনগর গ্রামের ইউপি সদস্য গনেশ সরকারের ছেলে সীমান্ত ডিগ্রি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র গৌতম সরকারকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে তার বাড়ির পাশে মোকলেছুর রহমানের নির্মাণাধীন বাড়িতে হত্যা করা হয়।

হত্যার আগে তার গালের মধ্যে গুলের কৌটা ঢুকিয়ে মুখে ক্রস টেপ সেঁটে দেয়া হয়। পরে মরদেহের ইট বাঁশ বেঁধে মোকলেছুর রহমান নামের একজনের বাড়ির পাশের পুকুরে ডুবিয়ে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা গনেশ সরকার বাদী হয়ে আলী আহম্মেদ শাওন, শাহাদাৎ হোসেন, সাজু শেখ, নাজমুল হোসেন, মুহসিন আলী ও কবিরুল ইসলাম মিঠুর নামে ২০১৬ সালের ১৬ ডিসেম্বর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আসামিদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী পরদিন ওমর ফারুক, নূর আহম্মেদ মুক্ত ও জামসেদের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি সম্পূরক অভিযোগ দায়ের করা হয়। নাজমুল, শাহাদাৎ ও সাজু শেখ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

এ ঘটনায় পুলিশ সাজু শেখের মা ফিরোজা খাতুনকে গ্রেপ্তার করে। ওই বছরের ২৯ ডিসেম্বর সম্পূরক অভিযোগটি আদালতে পাঠানো হয়। সদর থানার উপপরিদর্শক আসাদুজ্জামানের কাছ থেকে মামলাটির তদন্তভার ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি ডিবি পুলিশের উপপরিদর্শক আশরাফুল ইসলামের কাছে ন্যস্ত করা হয়।

পরে একই বছরের ১৮ এপ্রিল উপরিউক্ত ১০ আসামির নামে আদালতে অভিযোগত্র দাখিল করেন তিনি। ২০১৮ সালের পহেলা মার্চ আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ গঠন করা হয়।

এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে উল্লিখিত চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাদেরকে ফাঁসির আদেশ দেয়। এছাড়া বাকি ছয় আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তপন কুমার দাস জানান, রায় ঘোষণার সময় শাহাদাৎ হোসেন ও নাজমুল হোসেন আদালতে হাজির ছিল। তবে আলী আহম্মেদ শাওন ও সাজু শেখ পলাতক রয়েছে।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

নির্বাচনে সেনাবাহিনী পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করবে: সেনাপ্রধান

টেকনাফ একজনের মৃতদেহ উদ্ধার

যশোরে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ১

স্বেচ্ছায় যেতে চাইলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে: কমিশনার

ময়মনসিংহে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক মাদক বিক্রেতা নিহত

লালমনিরহাটে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ৩

জামালপুরে আ.লীগের সমাবেশ-আনন্দ শোভাযাত্রা

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করলেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত

নয়াপল্টন সংঘর্ষ: হেলমেটধারীরা আটক-তোলা হবে আদালতে

আদালতে যাওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে তারেকের বিষয়টি নিয়ে

সচিব- ডিএমপি কমিশনারের শাস্তি চেয়ে ইসিতে বিএনপির চিঠি

মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজের আহ্বান এরশাদের