উত্তাল মার্চ: বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের সবচেয়ে ঘটনাবহুল মাস

বুধবার, ০১ মার্চ, ২০১৭ (১২:৪৪)
উত্তাল-মার্চ-বাঙালির-মুক্তিসংগ্রামের-সবচেয়ে-ঘটনাবহুল-মাস

উত্তাল মার্চ: বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের সবচেয়ে ঘটনাবহুল মাস

বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের সবচেয়ে ঘটনাবহুল মাস মার্চের প্রথম দিন আজ-বুধবার। ভাষা আন্দোলন, স্বাধিকার সংগ্রামের পথ পেরিয়ে পাকিস্তানি পরাধীনতার শৃঙ্খল ভাঙতে ১৯৭১ সালের এ মাসেই শুরু হয়েছিল দুর্বার আন্দোলন। তাই পরিণতি পায় সশস্ত্র সংগ্রামে শুরু হয় গৌরবের মুক্তিযুদ্ধ। নয় মাসের যুদ্ধ জয়ে জন্ম নেয় স্বাধীন দেশ, বাংলাদেশ।

হাজার বছরের ইতিহাসে বাঙালির সবচেয়ে বড় অর্জন স্বাধীনতা। সেই স্বাধীনতার মাস মার্চ ফিরে এলো আবার।

বাঙালির আত্মপরিচয়ের উন্মেষ ৫২ এর ভাষা আন্দোলনে। বাঙালি জাতীয়তাবাদের সেই বীজ, স্বাধিকার আন্দোলনের পথ ধরে ধীরে ধীরে তা মহীরুহের রূপ ধারণ করে। ৭০-এর নির্বাচন ছিল টার্নিং পয়েন্ট। কিন্তু নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আওয়ামী লীগের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরে টালবাহানা শুরু করে পাকিস্তানি শাসকযন্ত্র।

জেনারেল ইয়াহিয়া ১ মার্চ হঠাৎ করেই ৩ মার্চের পূর্বনির্ধারিত জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেন। মুহূর্তে উত্তাল হয়ে ওঠে পুরো বাংলা। রাস্তায় রাস্তায় স্বতঃস্ফূর্ত অবরোধ শুরু হয়ে যায় প্রতিরোধ।

হোটেল পূর্বাণীতে তখন বঙ্গবন্ধুর সংবাদ সম্মেলন চলছিল। সম্মেলনে ইয়াহিয়ার ষড়যন্ত্র রুখে দেবার জন্য বাঙালির প্রতি আহ্বান জানান বঙ্গবন্ধু। ২ মার্চ ঢাকায় ও ৩ মার্চ সারাদেশে হরতালের ডাক দেন বাঙালির কণ্ঠস্বর।

বিক্ষোভের দাবানল আর জনমনে স্বাধীনতার তৃষ্ণা অকেজো করে দেয় ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র পাকিস্তানের ভিত। উন্মেষ উত্তেজনায় ফুঁসতে থাকে বাংলাদেশ। ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে সংগ্রামের পূর্ণাঙ্গ কর্মসূচি ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। ২৫ মার্চ রাতে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনা বাহিনী। ২৬ মার্চ থেকে শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ।

এর পরের ঘটনাপ্রবাহ প্রতিরোধের ইতিহাস। বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলা হয়। এরপর দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী সশস্ত্রযুদ্ধের পর ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জনের মধ্য দিয়ে জাতি লাভ করে স্বাধীনতা।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি আজ দেশ পরিচালনা করছে। যুদ্ধাপরাধের বিচার পাশাপাশি ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান ইতিবাসবিদ মুনতাসীর মামুন।

তবে বাঙালির স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে হলে পাঠ্যবইকে মৌলবাদের আগ্রাসনের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে বলেও মত দেন তিনি।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

শুরু হয়েছে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রবারণা উৎসব

দুর্গতিনাশিনী দেবী দুর্গাকে বিসর্জনে ভক্তদের মাঝে একদিকে আনন্দ অন্যদিকে বেদনা

মহাঅষ্টমী: মণ্ডপে মণ্ডপে হয়ে গেল কুমারি পূজা

মহাসপ্তমী: ঢাকের বাদ্য-শঙ্খ-উলুধ্বনিতে উৎসবমুখর পূজামণ্ডপ

মহাষষ্ঠীতে আচার-অর্চনায় দেবীর আনুষ্ঠানিক অধিষ্ঠান মণ্ডপে মণ্ডপে

ষষ্ঠীর মধ্যদিয়ে শুরু শারদীয় দুর্গাপূজা