আন্তর্জাতিক

বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ (১২:২৬)

সৌদির পক্ষে অবস্থান জারালো করল ট্রাম্প

ট্রাম্প

সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যার ঘটনায় আন্তর্জাতিক মহলের নিন্দা সত্ত্বেও সৌদি আরবের সঙ্গে বন্ধুত্বের প্রশ্নে জোরালো অবস্থান নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে রেকর্ড পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগে প্রতিশ্রুত সৌদি আরব তাদের একনিষ্ঠ মিত্র।

সৌদি সাংবাদিক জামাল কাসোগি হত্যায় যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কোনো হাত ছিল কি না, এই সত্য নিশ্চিতভাবে কোনো দিনই জানা যাবে না। তা ছাড়া আমেরিকার জন্য সৌদি আরবে অস্ত্র বিক্রি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অতএব সে দেশ বা তার নেতৃত্বকে যুক্তরাষ্ট্র পরিত্যাগ করবে না।

গতকাল মঙ্গলবার তিন পাতার এক বিবৃতিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাফ জানিয়ে দেন, সিআইএর সিদ্ধান্ত সত্ত্বেও তিনি সালমান অথবা সৌদি সরকারের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবেন না। আইন বা নৈতিকতার চেয়ে তার কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ অর্থ।

অনেক তার এই অবস্থানকে ‘আমেরিকা ফার্স্ট’নয়–‘সৌদি আরব ফার্স্ট’বলে ব্যাখ্যা করেছেন।

গতকাল হোয়াইট হাউস থেকে অবকাশ কাটাতে ফ্লোরিডায় তার হোটেলে রওনা হওয়ার আগে ট্রাম্পকে সে প্রশ্ন করা হলে তিনি নিজের অবস্থান আরও পরিষ্কার করে বলেন, ‘শত কোটি ডলারের ব্যবসা রাশিয়া বা চীনের হাতে ছেড়ে দেওয়ার প্রশ্ন ওঠে না। আমার জন্য এই নীতির একটাই অর্থ আমেরিকা ফার্স্ট।’

ট্রাম্পের এই যুক্তি কেবল বিরোধী ডেমোক্র্যাটরাই নয়, তার নিজ দলের নেতারাই প্রত্যাখ্যান শুরু করেছেন।

এর আগে ট্রাম্পের কাছে মিত্র হিসেবে পরিচিত সিনেটর লিন্ডসি গ্রাহাম যুবরাজ সালমানকে কার্যত খুনি হিসেবে অভিহিত করে বলেন, এই লোকটা বিষের মতো ক্ষতিকর। আরেক রিপাবলিকান সিনেটর বব কর্কার এই হত্যারহস্য উদ্ঘাটনে তদন্তের জন্য দুই ডেমোক্রাটিক সিনেটরসহ একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন।

গতকাল ট্রাম্পের বিবৃতি পাঠের পর সর্বশেষ যে রিপাবলিকান সিনেটর ট্রাম্পের বিরোধিতা করেছেন তিনি হলেন র্যা ন্ড পল। ট্রাম্পের প্রতি বন্ধুভাবাপন্ন এই সিনেটর সৌদি আরবের কাছে ১১০ বিলিয়ন ডলারের মার্কিন অস্ত্র বিক্রি চুক্তি পুনর্বিবেচনার অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন, এই চুক্তি বাতিল হওয়া উচিত, অন্যথায় একজন খুনিকে পুরস্কৃত করা হবে।

ট্রাম্প তার বিবৃতিতে সৌদির সাথে অব্যাহত সম্পর্কের পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বলেন, ইরানকে ঠেকাতে এই আঁতাতের প্রয়োজন রয়েছে।

সে যুক্তি প্রত্যাখাখ্যান করে র্যা ন্ড বলেন, ট্রাম্পের কথা শুনে মনে হয় তিনি বলছেন, সৌদি আরব খারাপ, কিন্তু ইরান এর চেয়েও খারাপ। দুই অশুভের মধ্যে কে অধিক খারাপ, সেই নৈতিক বিচারে যাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের উচিত হবে না।

সিনেটর পল অবশ্য ট্রাম্পের গৃহীত সিদ্ধান্তের জন্য তাকে দায়ী না করে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বল্টনকে দায়ী করেছেন। ‘এই কথা ট্রাম্পের নয়, বোল্টনের’—এক সাক্ষাৎকারে এমন কথা বলেন র্যা ন্ড পল।

বিরোধী ডেমোক্র্যিটরা অবশ্য ট্রাম্পকে তেমন ছাড় দিতে নারাজ। সিনেটর জিন শাহিন ট্রাম্পের বক্তব্যকে আমেরিকার গণতন্ত্রের মুখ কালিমা বলে বর্ণনা করেছেন।

আরেক ডেমোক্রেটিক সিনেটর টিম কেইন বলেন, এটা খুবই লজ্জার কথা যে ট্রাম্প একজন খুনে প্রশাসনের পক্ষ নিয়েছেন। এটা কখনো ‘আমেরিকার স্বার্থ সবার আগে’—এই নীতির প্রতিফলন হতে পারে না।

তিনি সৌদি আরবে মার্কিন অস্ত্র রপ্তানি বন্ধে ব্যবস্থা নিতে মার্কিন কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

খাসোগি হত্যার বিষয়ে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান পুরোপুরি জ্ঞাত থাকতে পারেন বলেও বিবৃতিতে স্বীকার করেন ট্রাম্প।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি কনসুলেটে যাওয়ার পর খুন হন জামাল খাসোগি।

এই হত্যার জন্য অসৎ গোয়েন্দাদের দায়ী করেছে সৌদি আরব। আর ক্রাউন প্রিন্স এ খুনের বিষয়ে কিছু জানতেন না বলেও দাবি তাদের।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

বেতন বাড়ানোসহ কর কমানোর প্রতিশ্রুতি ম্যাক্রোঁর

অভিশংসিত হওয়ার আশঙ্কায় ট্রাম্প

খাসোগির 'খুনিকে' তুরস্কের কাছে দেবে না সৌদি

জাপানে শ্রম ঘাটতি মেটাতে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগে আইন অনুমোদন

ব্রাজিলে ব্যাংক ডাকাতির চেষ্টা; শিশুসহ নিহত ১২ জন

ইতালিতে নৈশক্লাবে পদদলিত হয়ে নিহত ৬

মের্কেল: ধর্মযাজকের কন্যা থেকে 'ইউরোপের সাম্রাজ্ঞী

আফগানিস্তানে তালেবান হামলায় নিহত ১৪ সেনা

সর্বশেষ খবর

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

নিষিদ্ধ লঙ্কান অফ স্পিনার আকিলা ধনঞ্জয়া

অভিশংসিত হওয়ার আশঙ্কায় ট্রাম্প

সিলেটে মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে ঐক্যফ্রন্ট-বিএনপি প্রচারণা শুরু