আন্তর্জাতিক

শুক্রবার, ০৯ মার্চ, ২০১৮ (১৫:৪২)

শপথ নিলেন ত্রিপুরায় নতুন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব

বিপ্লব কুমার দেব

উত্তর-পূর্ব ভারতের ত্রিপুরায় নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন বিজেপি থেকে নির্বাচিত বিধায়ক বিপ্লব কুমার দেব আর উপ-মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বিজেপির জ্যেষ্ঠ নেতা যিষ্ণু দেব বর্মণ।

শুক্রবার দুপুরে রাজ্যের রাজধানী আগরতলার আসাম রাইফেলস ময়দানে তাদের এ শপথগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। তাকে শপথ বাক্য পাঠ করান রাজ্যপাল তথাগত রায়।

এছাড়া মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন বিজেপি নেতা এন সি দেববর্মা, রতন লাল নাথ, সুদীপ রায় বর্মণ, প্রাণজিত সিংহ রায়, মনোজ কান্তি দেব, মেবার কুমার জমাতিয়া, শান্তনা চাকমা প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বিজেপির কেন্দ্রীয় সভাপতি অমিত শাহ, শীর্ষ নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানি, মুরলি মনোহর যোশী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং ও ত্রিপুরার সদ্যবিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার।

এছাড়া প্রতিবেশী রাজ্য আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়ালসহ বিজেপি থেকে নির্বাচিত বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরাও উপস্থিত ছিলেন শপথ অনুষ্ঠানে।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ত্রিপুরা বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে রাজ্যের বনমালীপুর আসন থেকে অংশ নিয়ে বিজয়ী হন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিপ্লব কুমার। তার নেতৃত্বে বিজেপি বিধানসভার ৬০টি আসনের মধ্যে ৪৩টি আসনে জয় পায়। আর ভরাডুবি হয়েছে মানিক সরকারের নেতৃত্বাধীন সিপিএমের।

গত ৩ মার্চ ‘সেভেন সিস্টার্স’ খ্যাত সাত রাজ্যের মধ্যে তিন রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণা হয়। এরপর থেকেই দেশটির গণমাধ্যম বিপ্লব দেবকে ত্রিপুরার হবু মুখ্যমন্ত্রী উল্লেখ করে প্রতিবেদন প্রকাশ করে যা পরে বিজেপি আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয় ৬ মার্চ।

প্রসঙ্গত: ২০১৬ সালের ৭ জানুয়ারি ত্রিপুরা রাজ্যে বিজেপির দায়িত্ব পান বিপ্লব দেব। তিনি রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ওই সময় বিপ্লব দেব ১৫ বছর দিল্লিতে অবস্থান করেন; তখন সেখানে একটি ব্যায়ামাগারের প্রশিক্ষক হিসেবেও কাজ করেন তিনি।

বিপ্লব দেব ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারে থাকা দলটির সবচেয়ে কম বয়সী রাজ্য সভাপতি। এ যুবনেতা মাত্র দুই বছরের মাথায় ২৫ বছরের বাম শাসনের পতন ঘটিয়ে লাল থেকে গেরুয়া রঙে রাঙিয়ে দেন পিছিয়ে থাকা ত্রিপুরাকে।

এদিকে, সকালে শপথ নেয়ার আগে ত্রিপুরার নবনির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করেন।

এ সময় ত্রিপুরার উন্নয়নে বাংলাদেশের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি। সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ত্রিপুরার জনগণের সহযোগিতার কথা স্মরণ করেন।

নতুন সরকার প্রধানকে সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি দেন রাজ্যের জ্যেষ্ঠ বিজেপি নেতা জিশনু দেব বর্মা। ক্ষমতা গ্রহণের আগ মুহূর্তে নিজের অগ্রাধিকারের বিষয় ও নতুন রাজ্য শাসন নীতি নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন ৪৮ বছর বয়সী বিপ্লব দে। ওই সময় তিনি জানান, জনগণ তাকে উৎসাহ-উদ্দীপনা দিয়েছেন তাই তাদের চাওয়া-পাওয়ায় তার কাছে মুখ্য।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

ইন্দোনেশিয়ায় ধর্মীয় নেতার মৃত্যুদণ্ড

রোহিঙ্গা বিতাড়ন: মিয়ানমারের বক্তব্য জানতে চায় আইসিসি

মার্কিন পণ্যে শুল্ক আরোপ করেছে ইইউ

মা হলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

অভিবাসন নীতি থেকে সরে দাঁড়ালেন ট্রাম্প

আফগানিস্তানে ৩০ সেনা সদস্যকে হত্যা করেছে জঙ্গিরা

ইন্দোনেশিয়ার টোবা হ্রদে ফেরি ডুবে ১৮০ জন নিখোঁজ

জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল ছাড়ল যুক্তরাষ্ট্র

আইসল্যান্ডের বিরুদ্ধে নাইজেরিয়ার জয়

কোস্টারিকার ০-২ ব্রাজিল

ইন্দোনেশিয়ায় ধর্মীয় নেতার মৃত্যুদণ্ড

নওগাঁয় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২