ফিচার

বুধবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬ (২০:১২)

ভাষা আন্দোলনের সাহসী নারী লায়লা নূর

লায়লা নূর

বায়ান্নর অনেক আগে থেকেই সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের শাখা গঠন করে সারাদেশেই বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সভা সমাবেশ চলতে থাকে— কুমিল্লাও এর বাইরে ছিল না।

সেই ভাষা আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা রাখেন নারীরাও। তাদেরই একজন লায়লা নূর— ১৯৪৮ সাল থেকে বায়ান্নর সব আন্দোলনেই তার সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল।

১৯৪৮ সালে লায়লা নূর ছিলেন দশম শ্রেণীর ছাত্রী। কুমিল্লা টাউন হলে বাংলা ভাষা বিরোধী এক সভায় প্রতিবাদী বক্তব্যে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার যৌক্তিকতা সবার সঙ্গে তিনিও তুলে ধরেন।

লায়লা নূর দেশ টিভিকে বলেন, বাবার চাকরির সূত্রে বাসায় অনেক বই ছিল—পাকিস্তানে বিভিন্ন ভাষাবাসিদের পরিসংখ্যান ভালই জানতাম। তারপর আসে বায়ান্ন। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে পড়ার সময় থেকেই ভাষার জন্য আন্দোলনে যোগ দেই।

সেই দিন থেকে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে সোচ্চার ছিলাম শেষ পর্যন্ত জানান লায়লা নূর।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ১৯৫৫ সালে একুশে ফেব্রুয়ারি পালন করতে গিয়ে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে নির্যাতনের শিকারও হতে হয় তাকে। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের (অব.) শিক্ষিকা ভাষা সংগ্রামী লায়লা নূর চান সর্বস্তরে বাংলা ভাষার ব্যবহার। যেন বিকৃত হয়ে না যায় প্রাণের এ ভাষা- তরুণ প্রজন্মের কাছে এমনই প্রত্যাশা তার।

এছাড়াও রয়েছে

বিশ্বের দৃষ্টিনন্দন কয়েকটি অতিকায় টাওয়ারের সৌন্দর্য্য

কোন দেশের হাতে কতগুলো পরমাণু অস্ত্র রয়েছে

মাদকের মতোই ক্ষতিকর স্মার্টফোনের আসক্তি

ফেসবুক এ্যাকাউন্ট মুছে ফেলতে কি কি করণীয়

মোঘল স্থাপত্য শৈলীর অন্যতম নিদর্শন মুন্সিগঞ্জে ইদ্রাকপুর দুর্গ

আরেক ভাষা সংগ্রামী সিরাজুল ইসলাম

সাহসী এক নারী মুক্তিযোদ্ধা কনক মজুমদার

‘বাংলার টাইগ্রেস’ রিতা

ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক হবে শনিবার থেকে

শেষ হলো ভাষা দক্ষতা যাচাই, বিজয়ীরা যাচ্ছেন চীনে

পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা কেন্দ্রের সুড়ঙ্গ ধ্বংস করল উ. কোরিয়া

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১০