রবিবার, ০৭ জুন, ২০১৫ (১১:১৭)

ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস আজ

ঐতিহাসিক-৬-দফা-দিবস-আজ

৬ দফা দিবস

ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস আজ। ১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি লাহোরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির মুক্তি আন্দোলনের সনদ ৬ দফা তুলে ধরলে জাতি পায় স্বাধীনতা আদায়ের মূলমন্ত্র। ভোটের অধিকার, আলাদা মুদ্রা ও আঞ্চলিক কর পদ্ধতিসহ এসব দাবি আদায়ে ৭ জুন সোচ্চার হয়ে ওঠে এ বাংলার স্বাধীনচেতা জনতা। দাবি আদায়ে জোরদার হয় বাঙালির আন্দোলন-সংগ্রাম।

ঐতিহাসিক ৬ দফা ছিল বাঙ্গালি জাতির মুক্তির সনদ। ৬ দফার মধ্যে নিহিত ছিল বাঙালির স্বাধীনতার বীজ। নির্যাতিত নিপীড়িত, শোষিত এবং ন্যায্য অধিকার বঞ্চিত বাঙালি জাতিকে পশ্চিম পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর নাগপাশ থেকে মুক্ত করার জন্য বাঙালিদের প্রাণের দাবি ছিল ছয় দফা দাবি।

১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই ঐতিহাসিক ৬ দফা পেশ করেন। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের অন্যতম গৌরবময় অধ্যায় ৬ দফায় মূল বক্তব্য ছিল, প্রতিরক্ষা এবং পররাষ্ট্রনীতি ছাড়া সব ক্ষমতা প্রাদেশিক সরকারের হাতে থাকবে। পূর্ব বাংলা ও পশ্চিম পাকিস্তানে দুটি পৃথক ও সহজ বিনিময়যোগ্য মুদ্রা থাকবে। সরকারের কর, শুল্ক ধার্য ও আদায় করার দায়িত্ব প্রাদেশিক সরকারের হাতে থাকাসহ দুই অঞ্চলের অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রার আলাদা হিসাব থাকবে এবং পুর্ববাংলার প্রতিরক্ষা ঝুঁকি কমানোর জন্য এখানে আধাসামরিক বাহিনী গঠন ও নৌবাহিনীর সদর দপ্তর স্থাপন।

তবুও দাবি আদায়ের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু পুনরায় জনসংযোগ চালাতে থাকলে ৯ মে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিন মাস তাকে আটকাদেশ দেয়া হলে বাঙালি যুব, ছাত্র জনতা এক দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলে। সেই অবস্থায় আওয়ামী লীগের নেতারা ৭ জুন দেশব্যাপী হরতাল পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। দেশের সর্বত্র হরতাল চলাকালে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে শ্রমিকরা মিছিল বের করলে পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালায়। এতে মনু মিয়াসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়। আহত ও গ্রেপ্তার হন অনেকেই। হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ফেটে পড়ে গোটা দেশ।

এই আন্দোলন গণঅভ্যুত্থানে পরিণত হলে তৎকালীন পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট সামরিক জান্তা আইয়ুব খান বাধ্য হয়ে পাকিস্তানের শাসনভার তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল ইয়াহিয়ার হাতে দিয়ে পদত্যাগ করেন।

৬ দফা আন্দোলনের পথ ধরে সূচিত হয় ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান। যা পরিণত হয় ৭১ এর মুক্তির আন্দোলনে।

১৯৬৬ সালের ছয় দফা আন্দোলনের এক অনন্য মহিমায় সিক্ত রক্তঝরা দিবস হিসেবে ৭ জুন চিরকালই স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

মোঘল স্থাপত্য শৈলীর অন্যতম নিদর্শন মুন্সিগঞ্জে ইদ্রাকপুর দুর্গ

আরেক ভাষা সংগ্রামী সিরাজুল ইসলাম

ভাষা আন্দোলনের সাহসী নারী লায়লা নূর

সাহসী এক নারী মুক্তিযোদ্ধা কনক মজুমদার

আরও খবর

ইপিএল: ষোলোটি ম্যাচ জিতেছে ম্যানচেস্টার সিটি

আরো একটি ট্রফি উঠলো রোনালদোর হাতে

সোমবার শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ যুব গেমস ২০১৮

শ্রবণ-বাক প্রতিবন্ধীদের জন্য আদালতে ইশারাভাষী নিয়োগের আহ্বান

কংগ্রেসের সভাপতির দায়িত্ব নিলেন রাহুল গান্ধী

শহীদ মুস্তাক একাদশের বিপক্ষে জিতেছে শহীদ জুয়েল একাদশ

শুক্রাবাদে নির্মাণাধীন ভবন থেকে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার রিমনের মৃতদেহ উদ্ধার

দেশ এখন নিজের পায়ে দাঁড়াতে শিখেছে: শেখ হাসিনা

ষোড়শ সংশোধনী: আন্তর্জাতিক আইনজীবী নিয়োগের অনুমতি চেয়ে আবেদন

বিশ্বের ব্যস্ততম বিমানবন্দর আটলান্টার হার্টসফিল্ড-জ্যাকসনের কার্যক্রম আংশিক বন্ধ