নির্বাচন

বুধবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১৮ (১৯:১২)

সারাদেশে উৎসবমুখর পরিবেশে চলে মনোনয়নপত্র জমা

সারাদেশে উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে মনোনয়নপত্র জমা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য সারাদেশে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন আজ।

এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় কোনো শো-ডাউন চলবে না। একসঙ্গে ৫ থেকে ৭ জনের বেশি কর্মী-সমর্থক প্রার্থীর সঙ্গে থাকতে পারবেন না। শেষ দিনে ঢাকায় উৎসবমুখর পরিবেশে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা। বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সমর্থিত প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দেন।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আজ ২৮ নভেম্বর মনোনয়ন জমার শেষ দিন, ২ ডিসেম্বর হবে মনোনয়ন যাচাই-বাছাই, ৯ ডিসেম্বর প্রত্যাহারের শেষ সময় এবং ৩০ ডিসেম্বর হবে ভোটগ্রহণ।

এদিকে, মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষদিনে দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার নির্বাচনী কার্যালয়ে প্রার্থীদের ভীড় দেখা গেছে। সকাল থেকে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে উৎসাহ-উদ্দীপনায় মনোনয়নপত্র জমা দেন প্রার্থীরা।

মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাক্তার দীপু মনি, যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকসহ বেশ কয়েকজন প্রার্থী। জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও আওয়ামী লীগের টিকিটে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষদিনে বুধবার দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় নির্বাচনী কর্মকর্তার কার্যালয়ে প্রার্থী ও বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীদের ভীড় ছিল সকাল থেকেই। সকাল সাড়ে ১০টায় মাদারীপুর-২ আসনের জন্য মনোনয়ন জমা দেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। এছাড়া আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ অন্য দলের প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দিচ্ছেন।

দুপুরে চাঁদপুর-৩ আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডাক্তার দীপু মনি। এছাড়াও শেষদিনে এই আসনে বিএনপির প্রার্থী শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক এবং চাঁদপুর-১ আসনে বিএনপির মোশারফ হোসেন মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক মনোনয়ন জমা দিয়েছেন কুমিল্লা ১১ আসনে। এছাড়া ১০ আসনে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল লোটাস, ৫ আসনে সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু এবং ৬ আসনে হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার মনোনয়ন জমা দেন। আর বিএনপির প্রার্থী হয়ে কুমিল্লা ১ আসনে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন এবং ৬ আসনে হাজী আমিনুর রশিদ ইয়াছিন মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

কুষ্টিয়া-৩ আসনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বুধবার মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। কুষ্টিয়া ৪ আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিম আলতাফ জর্জ।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে ভোলা-১ আসন থেকে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, ২ আসনে আলী আজম মুকুল, ৩ আসনে নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন এবং ৪ আসনে আব্দুল আল ইসলাম জ্যাকব মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার পক্ষে নড়াইল-২ আসনে মনোনয়ন জমা দেন আওয়ামী লীগ নেতারা। এই আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ২০ দলের প্রার্থী ডক্টর ফরিদুজ্জামান ফরহাদ। নড়াইল-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কবিরুল হক মুক্তি, মহাজোটের শরীক দল জাসদ একাংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া এবং বিএনপির প্রার্থী বিশ্বাস জাহাঙ্গীর আলম মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

দুপুর পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির ১৬ প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। দিনভরই রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে বিভিন্ন প্রার্থীদের ভীড়।

বরিশালেও রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে সকাল থেকে ছিল উপচে পড়া ভীড়। ৫ আসনে মনোনয়ন জমা দেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল জাহিদ ফারুক শামীম এবং বিএনপির এবায়দুল হক চান। বরিশাল ১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আলহাজ আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহর পক্ষে মনোনয়ন জমা দেন তার ছেলে সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদেক আব্দুল্লাহ। অন্যান্য আসনেও আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ অন্যান্য দলের প্রার্থীরা তাদের মনোনয়ন জমা দেন।

শেষদিনে দিনাজপুর-৩ আসনের জন্য জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে মনোনয়ন জমা দেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম। বিরল উপজেলা সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে দিনাজপুর-২ আসনের মনোনয়ন জমা দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। এছাড়া দিনাজপুর ৫ আসনে মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, ১ আসনে মনোরঞ্জনশীল গোপাল এবং ৬ আসনে শিবলী সাদিক মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

রংপুর-৩ আসনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদের পক্ষে মনোনয়ন জমা দেন সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙা। আর রংপুর -১ আসন থেকে নিজের জন্য মনোনয়ন জমা দেন রাঙা।

নাটোর-২ আসনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল। এছাড়া মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনে নাটোর-১ আসনে শহীদুল ইসলাম বকুল এবং ৪ আসনে অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

নীলফামারী জেলার ৪টি সংসদীয় আসনে বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা মনোনয়ন দাখিল করেছেন। দুপুরে দেড়টার দিকে নীলফামারী-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর মনোনয়ন জমা দেন। এর আগে একই আসনে বিএনপি প্রার্থী শামসুজ্জামান মনোনয়ন জমা দেন।

চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন প্রার্থীরা। সকালে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, আফসারুল আমিন ও এম এ লতিফ। অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মোরশেদ খান ও আবদুল্লাহ আল নোমান।

খাগড়াছড়িতে মনোনয়ন দাখিল করেছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা। দুপুরে জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসকের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে মনোনয়ন ফরম দাখিল করেন তারা।

উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা। কিশোরগঞ্জ-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের পক্ষে মনোনয়ন জমা দেন তার ৪ ভাই-বোন। এ আসনে বিএনপি থেকে সাবেক জজ রেজাউল করিম খান চুন্নু মনোনয়নের চিঠি জমা দেন।

সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন ফরম দাখিল করেছেন জাতিসংঘ বাংলাদেশ মিশনের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ কে আবদুল মোমেন। এসময় বড় ভাই অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত তার সঙ্গে ছিল। আর সিলেট-৬ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, সিলেট-১ আসনে বিএনপি প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির ও সিলেট-৪ আসনে বিএনপি প্রার্থী দিলদার হোসেন সেলিম মনোনয়ন ফরম দাখিল করেন।

এছাড়া উৎসাহ উদ্দীপনায় মৌলভীবাজার, মাগুড়া, ফরিদপুর, বান্দরবান, রাজবাড়ি, পটুয়াখালী, ময়মনসিংহে মনোনয়ন ফরম জমা দিচ্ছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ অন্যান্য দলের প্রার্থীরা।

গতকাল

নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ মিডিয়া সেন্টারে এক ব্রিফিংয়ে বলেন, বুধবার মনোনয়ন জমার শেষ দিন। মনোনয়ন জমার সময় কোনো মিছিল শোডাউন করা যাবে না। কেউ করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, বাস-ট্রাক যানবাহন, মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা, মশাল মিছিল করা যাবে না— ইতোমধ্যে অনেকে শোডাউন করার চেষ্টা করেছে; রিটার্নিং অফিসারকে বলা হয়েছে যেন আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

সচিব জানান, পতাকাসহ গাড়ি নিয়ে মন্ত্রী-এমপিরা মনোনয়নপত্র জমা দিতে যেতে পারবেন না। কেউ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য নিজ এলাকায় গেলে পতাকা নামিয়ে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যেতে হবে। ‘সংসদ সদস্য’ লেখা স্টিকার ব্যবহারও সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

তিনি বলেন, আচরণবিধি প্রতিপালনে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে রির্টানিং অফিসার ও নির্বাহী হাকিমসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইলেকটোরাল এনকোয়রি কমিটিও করা হয়েছে।

ভোটের প্রচারে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা যাবে না জানিয়ে ইসি সচিব বলেন, নির্বাচনী প্রচারের যাতায়াতে শুধু দলীয় প্রধানরা হেলিকপ্টার ব্যবহার করতে পারবেন। তবে হেলিকপ্টার থেকে লিফলেট বিতরণ করা যাবে না।

তবে ফেইসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আগাম প্রচার নিয়ে নির্বাচন কমিশনের করণীয় কিছু দেখছেন না ইসি সচিব।

তিনি বলেন, সোশাল মিডিয়ায় প্রচারের বিষয়ে আমরা কিছুই বলিনি, এটা আচরণবিধিতে আনার সুযোগ নেই। তবে সোশাল মিডিয়ায় যেন অপপ্রচার না হয় এই নির্দেশনা আমরা দিয়েছি।

নির্বাচনী বিধি লঙ্ঘন করলে ছয় মাসের কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ ৫০ হাজার জরিমানা এবং সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে প্রার্থিতা বাতিলের ক্ষমতা রয়েছে ইসির। রাজনৈতিক দল বিধি লঙ্ঘন করলে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

২৪ ডিসেম্বর থেকে সেনাবাহিনী মোতায়েন: সিইসি

দুই ঘটনায় সিইসি বিব্রত

নির্বাচনে ভোটের উত্তাপ যেন উত্তপ্ত না হয়: সিইসি

নির্বাচনে সহিংসতা থেকে দূরে থাকার আহ্বান মিলারের

আতঙ্ক নয় আস্থার পরিবেশ চায় কমিশন: সিইসি

সারাদেশে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের তালিকা

শেষ প্রতীক বরাদ্দ, প্রচারণায় যা করা যাবে না

প্রত্যাহার: জাতীয় ঐক্য দিল ২৬ প্রার্থী, আ’লীগ স্পষ্ট করেনি

সর্বশেষ খবর

প্রশাসনের গোপন বৈঠকের তথ্য দিলেন রিজভী

নৌকায় ভোট না দিলে দেশ আবারো অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে

হেরে যাওয়ার আশঙ্কায় সন্ত্রাসের আশ্রয় নিচ্ছে বিএনপি: কাদের

২৪ ডিসেম্বর থেকে সেনাবাহিনী মোতায়েন: সিইসি