অর্থনীতি

ksrm

বৃহস্পতিবার, ০৭ জুন, ২০১৮ (১৮:২২)

বাজেটে সার্বজনীন পেনশন প্রবর্তনের প্রস্তাব অর্থমন্ত্রীর

বাজেটে সার্বজনীন পেনশন প্রবর্তনের প্রস্তাব অর্থমন্ত্রীর

সরকারি পেনশন কার্যক্রমের বাইরে বেসরকারি পর্যায়ে আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক খাতে কর্মরত কর্মজীবীদের জন্য সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

দেশের মোট বয়স্ক জনসংখ্যার মধ্যে পেনশন ভোগীর সংখ্যা অতি সামান্য— শুধু সরকারি কর্মচারী এবং কতিপয় বেসরকারি সংস্থার কর্মচারীরা সর্বমোট প্রায় ৭ থেকে ৮ লাখ পরিবার বর্তমানে নিয়মিত পেনশন পেয়ে থাকেন। অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীদের বাইরে হতদরিদ্র ৩৫ লাখ মানুষ মাসিক ৪০০ টাকা হারে বয়স্ক ভাতা পাচ্ছেন যা মোট বয়স্ক জনসংখ্যার এক চতুর্থাংশ মাত্র। তাদের ভাতার পরিমাণও মানসম্মত জীবনধারণের পক্ষে যথেষ্ট নয়।

অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, প্রস্তাবিত ব্যবস্থার আওতায় সরকার পরিচালিত স্কিমে নিবন্ধন করে একজন কর্মজীবী মাসিক ভিত্তিতে নির্দিষ্ট পরিমাণ চাঁদা জমা করবে। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে তার নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষও একটা নির্দিষ্ট অঙ্ক সংশ্লিষ্ট কর্মজীবীর পেনশন হিসেবে জমা করবেন।

হতদরিদ্র শ্রমজীবীদের ক্ষেত্রে তাদের অংশের অতিরিক্ত হিসেবে সরকার পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ ওই হিসাবে জমা করবে। এ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে গঠিত তহবিল বিনিয়োগ হতে প্রাপ্ত আয় সার্বজনীন পেনশন তহবিলে জমা হতে থাকবে। ক্রমপঞ্জিভুত চাঁদা ও আয়ের পরিমাণের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অবসরকালে মাসিক পেনশন প্রাপ্ত হবেন বলে জানান তিনি।

তবে সার্বজনীন এ পেনশন ব্যবস্থা প্রবর্তনের জন্য মৌলিক কাঠামোগত সংস্কার প্রয়োজন হবে যা সময় ও ব্যয়সাপেক্ষ ব্যাপার বলেও জানান অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সরকারি কর্মচারী ও জনগণের মধ্যে সুযোগের ন্যায্যতা ও সামঞ্জস্য বিধান করার জন্য উপযুক্ত কর্মপরিকল্পনা, ধারাবাহিক কৌশলগত পরিবর্তন, প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো সৃজন, কারিগরি সক্ষমতা ও যথাযথ নীতি-কৌশল প্রণয়ন করা প্রয়োজন।

তিনি আরো বলেন, সার্বিক বিষয় বিবেচনায় নিয়ে বেসরকারি পর্যায়ে আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক কাজে নিয়োজিত সকল কর্মজীবী মানুষের জন্য একটি টেকসই সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা প্রবর্তনের কাজ এ অর্থবছরেই শুরু করার আশা রাখি। অন্ততঃপক্ষে কয়েকটি নির্দিষ্ট এলাকায় পরীক্ষামূলক উদ্যোগ হিসেবে সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু করার ইচ্ছা আছে।’

প্রস্তাবিত বাজেট অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ২২ হাজার ৪৩৯ কোটি টাকা, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে ২ হাজার ৫৬০ কোটি টাকা, পরিবহন ও যোগাযোগে এক হাজার ৪৭ কোটি টাকাসহ সর্বমোট ২৬ হাজার ৪৬ কোটি টাকা পেনশন ও গ্র্যাচুইটি ধরা হয়েছে। বিদায়ী ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এ খাতে ব্যয় ধরা হয়েছিল ২২ হাজার ৯৪০ কোটি টাকা।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারীদের মৃত্যুর পর তাদের বিধবা স্ত্রী ও প্রতিবন্ধী সন্তানকে আজীবন এবং বিপত্নীক স্বামীকে সর্বাধিক ১৫ (পনের) বছর মাসিক চিকিৎসা ভাতা প্রদান করা হবে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরুর পর অর্থমন্ত্রী প্রথমেই চলতি অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট উপস্থাপন করেন। এরপর আগামী ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী।

প্রস্তাবিত বাজেটে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ের বিপরীতে মোট রাজস্ব আয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা, যা জিডিপির ১৩ দশমিক ৪ শতাংশ।

এতে আয়-ব্যয়ের ঘাটতি দাঁড়াবে ১ লাখ ২৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৪ দশমিক ৯ শতাংশ।

প্রস্তাবিত বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার প্রাক্কলন করা হয়েছে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ, যা চলতি অর্থবছরের জন্য প্রবৃদ্ধির নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে দশমিক ৪ শতাংশ বেশি। এতে মূল্যস্ফীতি প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

বৈশ্বিক সূচকে অবস্থানের অবনমন ঘটেছে বাংলাদেশের

খালেদা জিয়া ক্ষমতায় আসলে সমৃদ্ধি থমকে যাবে: অর্থমন্ত্রী

বাংলাদেশের অর্থনীতি ৭.১% হারে বাড়বে: আইএমএফ

গ্যাসের দাম বাড়ছে শিল্প-কারখানা ও যানবাহনে

জিডিপি হবে ৭.৫% পূর্বাভাস দিল এডিবি

৫% সুদে ঋণ সুবিধা পাচ্ছেন সরকারি চাকরিজীবীরা

ধর্মঘটে বেনাপোল স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ, ২ নাইজেরিয়ান আটক

ইভিএম প্রকল্প অনুমোদন একনেকে

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে মইনুলকে

আশ্রয়প্রার্থীকে নাগরিকত্ব দেয়ার সিদ্বান্ত আসাম মন্ত্রিপরিষদের

বিদ্যমান আইনে জামাতকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা সম্ভব না

নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কথাই শেষ কথা