অর্থনীতি

রোহিঙ্গাদের প্রয়োজনে বিশ্বব্যাংকের সহায়তা নেয়া হবে: অর্থমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর, ২০১৭ (১৭:১৬)
রোহিঙ্গাদের-প্রয়োজনে-বিশ্বব্যাংকের-সহায়তা-নেয়া-হবে-অর্থমন্ত্রী

আবুল মাল আবদুল মুহিত

মিয়ানমারে থেকে আসা রোহিঙ্গাদের প্রয়োজন মেটাতে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের সহায়তা নেবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

এই সহায়তার পরিমাণ ও ধরণ কী হবে-তা ঠিক হবে দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে।

বুধবার ওয়াশিংটন ডিসিতে বিশ্ব ব্যাংক-আইএমএফ বার্ষিক সম্মেলনের প্রথম দিন বিশ্বব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা এবং দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যানেট ডিক্সনের সঙ্গে বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয় বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, মিয়ানমার থেকে আসা অসহায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় বিশ্বব্যাংকের দুই কর্মকর্তা বাংলাদেশের প্রশংসা করেছেন। বিশ্বব্যাংকও রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতে চায়, সহায়তা করতে চায়। আমরা তদের সহায়তা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তারা কী পরিমাণ সহায়তা দেবে, সে সহায়তার কতোটা অনুদান হবে; কতোটা ঋণ হবে, না পুরোটাই ঋণ হবে তা তা আমরা দুপক্ষ বসে ঠিক করব।

শিগগিরই বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিনিধিদল বাংলাদেশ সফরে আসবে—এ কথা জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, তারা বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে এবং বাস্তব পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সার্বিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বিশ্ব ব্যাংকের সহযোগী সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি -আইডিএ ‘রিফিউজি ফান্ড’ নামে নতুন একটি তহবিল গঠন করেছে, যার উদ্দেশ্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শরণার্থীদের সহায়তা দেয়া। এই তহবিলের আকার ২০০ কোটি ডলার। যে কোনো দেশ প্রয়োজনে সেখান থেকে তিন বছর মেয়াদে সর্বোচ্চ ৪০ কোটি ডলার ঋণ নিতে পারে। তবে সেজন্য সুদ দিতে হয়। মোট অর্থের একটি অংশ বিশ্বব্যাংক অনুদান হিসেবেও দিতে পারে।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্বব্যাংক ঢাকা কার্যালয়ের প্রধান চিমিয়াও ফান এক সংবাদ সম্মেলনে ওই তহবিল থেকে রোহিঙ্গাদের জন্য ঋণ দেয়ার বিষয়টি জানান।

বুধবার বিশ্ব ব্যাংকের দুই শীর্ষ কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠকের পর অর্থমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের সহায়তার ব্যাপারে তারা খুবই আগ্রহ প্রকাশ করেছে।… বাংলাদেশ এই তহবিলের কী পরিমাণ পাবে; শর্ত কী হবে সেসব বিষয়ে দ্রুতই সিদ্ধান্ত হবে।

বিশ্ব ব্যাংক সিইও ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য সীমান্ত খুলে দিয়ে বাংলাদেশ যে ভূমিকা রেখেছে তার জন্য আমরা সম্মান জানাই এবং প্রশংসা করি। আমরা বাংলাদেশের সহায়তার জন্য যা করা সম্ভব তার পুরোটাই করব। আমাদের একটি রিফিউজি সহায়তা উইনডো আছে; সেখান থেকে বাংলাদেশকে সহায়তা করতে পারলে আমরা সম্মানিত বোধ করব।

স্থানীয় বাসিন্দা ও রোহিঙ্গাদের মধ্যে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করার পাশাপাশি কেউ যাতে সহায়তা থেকে বঞ্চিত না হয়, সে বিষয়ে ‘যৌক্তিক বিবেচনার’ প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

পরে বিশ্বব্যাংকের এক বিবৃতিতে বলা হয়, লাখ লাখ রোহিঙ্গার ভার সামাল দিতে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের সহায়তা চেয়েছে এবং বিশ্বব্যাংক এই সঙ্কটে রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয় বাসিন্দাদের পাশে দাঁড়াতে প্রস্তুত আছে।

ওই সহায়তার পরিমাণ কী হবে তা এখনও নির্ধারণ করা না হলেও স্বাস্থ্য, শিক্ষা, সুপেয় পানি, পয়ঃনিষ্কাশন এবং সড়ক অবকাঠামোর মত বিষয় এর আওতায় আসতে পারে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

অ্যানেট ডিক্সনকে উদ্ধৃত করে সেখানে বলা হয়, আমরা আশা করব, রোহিঙ্গারা শিগগিরই তাদের দেশে ফিরে যেতে পারবে। কিন্তু তার আগে তাদের জরুরি মানবিক সহায়তার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের পাশে থাকতে হবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে। এজন্য যা করা সম্ভব তার সবই আমরা করব।

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নের মুখে গত দেড় মাসে প্রায় সোয়া পাঁচ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, যাদের সহায়তায় জোর তৎপরতা চালাচ্ছে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দাতা ও উন্নয়ন সংস্থা।

এ অবস্থায় রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য বিশ্বব্যাংক থেকে ঋণ নিলে সমালোচনা হবে কিনা- এমন প্রশ্নে মুহিত বলেন, যে সহায়তা তারা দেবে সেটা অনুদান না ঋণ- তা তো এখনও ঠিক হয়নি। আর যদি ঋণ নিয়ে আমরা রোহিঙ্গাদের সহায়তা দেই, তাতে দোষ কী? আমরা তো মানবতার জন্য এই কাজ করছি। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি…। যারা সমালোচনা করবে তারা রাবিশ।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাংকের এই সহায়তার কিছু অংশ যদি ঋণও হয়, তার সুদের হার হবে ‘খুবই সামান্য’ এটা নিয়ে ‘বিচলিত হওয়ার মত কিছু’ নেই।

বিশ্ব আর্থিক খাতের এই দুই মোড়লের ছয় দিনব্যাপী বার্ষিক সম্মেলন শেষ হবে ১৬ অক্টোবর। সম্মেলনে অংশ নিতে বাংলাদেশের উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল ওয়াশিংটনে অবস্থান করছে; যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন অর্থমন্ত্রী।

সম্মেলনের প্রথম দিন বেশ ব্যস্ত সময় কেটেছে মুহিতের। বিশ্বব্যাংকের দুই কর্মকর্তা ছাড়াও আইএমএফের ডিএমডি মিতসুহিরো ফুরুসাওয়া এবং বিশ্ব ব্যাংকের সহযোগী সংস্থা এমআইজিএ-এর ডিএমডি কিকো হোন্ডার সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, অর্থসচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব কাজী শফিকুল আযম এবং ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ মোশাররফ হোসাইন ভূঁইঞা বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসেবে এ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

বিদ্যুতের যে দাম বাড়ানো হয়েছে সেটা মামুলি ব্যাপার: ড. তৌফিক

ফের বাড়ল বিদ্যুতের দাম, খুচরা পর্যায়ে ৫.৩%

বিদ্যুৎ-জ্বালানি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে নাজুক অবস্থায় বাংলাদেশ

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের সাত পরিচালকের পদত্যাগ

গত অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭.২৮ % চূড়ান্ত

চলতি অর্থবছরে বেসরকারি বিনিয়োগে গতি ফিরবে: অর্থমন্ত্রী