রিজার্ভ চুরি: বাংলাদেশে অর্থ ফেরতে আগ্রহ নেই ফিলিপাইনের

শুক্রবার, ২৪ মার্চ, ২০১৭ (১২:৩৯)
রিজার্ভ-চুরি-বাংলাদেশে-অর্থ-ফেরতে-আগ্রহ-নেই-ফিলিপাইনের

রিজার্ভ চুরি

রিজার্ভ চুরির অর্থ বাংলাদেশে পাঠানোর বিষয়টিকে আর গুরুত্ব দিচ্ছে না ফিলিপাইন সরকার। এ নিয়ে দেশটির সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। এছাড়া, সেখানকার অনেক কর্মকর্তা মনে করেন, ব্যাংক তহবিল লোপাটের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেউ কেউ জড়িত।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনা প্রথম বিস্তারিত ফাঁস করে আলোড়ন তোলা ফিলিপাইনের 'ইনকোয়ারার' পত্রিকার সাংবাদিক ড্যাক্সিম লুকাস বিবিসি বাংলাকে এসব কথা বলেছেন। এ ব্যাপারে শিগগিরই শুনানি শুরু হবে কি না, সে বিষয়েও কোন ধারনা দিতে পারেননি এই সাংবাদিক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির ঘটনা বিশ্ব ব্যাংকিং ব্যবস্থায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় অর্থ কেলেঙ্কারির ঘটনা। ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি নিউইয়র্ক ফেডারেল ব্যাংকে রিজার্ভ থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়।

এরমধ্যে শ্রীলঙ্কায় যাওয়া ২ কোটি ডলার ফেরত আসে। বাকি ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার চলে যায় ফিলিপাইনের ব্যাংক ও জুয়ার বাজারে।

ফিলিপাইনে যাওয়া ওই অর্থ উদ্ধারে নড়েচড়ে বসে তৎকালীন ম্যানিলা সরকার। অর্থ উদ্ধারে সিনেটের উচ্চকক্ষে একের পর এক শুনানিও হয়। এসব তৎপরতায় ফিলিপাইন থেকে ফেরত আসে দেড় কোটি ডলার। তবে এখোনো বাকি রয়েছে আরও সাড়ে ৬ কোটি ডলার।

এসব অর্থ ফেরত আনার জন্য তদবির করে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে রিজার্ভের অর্থ বাংলাদেশে পাঠানোর ব্যাপারে ফিলিপাইন সরকার শুরুতে যতটা আগ্রহী ছিল এখন আর গুরুত্ব দিচ্ছে না। এমনটাই জানিয়েছেন ফিলিপিন্সের ইনকোয়ারার পত্রিকার অনুসন্ধানী সাংবাদিক ড্যাক্সিম লুকাস, যিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনা প্রথমে বিস্তারিত ফাঁস করেন।

বৃহস্পতিবার বিবিসি বাংলাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইনকোয়ারারের সাংবাদিক বলেন তিনি মনে করেন এর পিছনে দুটো কারণ রয়েছে- প্রথমত ফিলিপাইনের রাজনৈতিক পরিস্থিতি বদল। দ্বিতীয়ত সে দেশের অনেক কর্মকর্তাই মনে করেন ব্যাংক তহবিল লোপাটের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেউ কেউ জড়িত।

গত বছরের মাঝামাঝিতে দেশটিতে সাধারণ নির্বাচন হয়েছে। ড্যাক্সিম লুকাস বলেন, গত বছর শুনানি অনুষ্ঠানের ব্যাপারে যেসব সিনেটর বিশেষভাবে ভূমিকা রেখেছিলেন, তাদের অনেকেই সর্বশেষ নির্বাচনে জয় পাননি। তাছাড়া ফিলিপাইনের আইনপ্রনেতারা

এখন দেশের অভ্যন্তরীন নানা বিষয় নিয়েও ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের চুরি যাওয়া টাকা নিয়ে শুনানির বিষয়টি এখন চাপা পড়ে আছে।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের সাত পরিচালকের পদত্যাগ

গত অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭.২৮ % চূড়ান্ত

চলতি অর্থবছরে বেসরকারি বিনিয়োগে গতি ফিরবে: অর্থমন্ত্রী

আবারও সময় বাড়ালো সাভার ট্যানারি শিল্প নির্মাণকাজের

রোহিঙ্গাদের জন্য অর্থ সহায়তা দেবে এডিবি

২০২৪ সালের মধ্যেই দারিদ্রমুক্ত হবে দেশ: অর্থমন্ত্রী