অপরাধ

বুধবার, ০৯ জানুয়ারী, ২০১৯ (১১:৩৮)

ডেমরায় দুই শিশু হত্যাকারীর ফাঁসির দাবি, এলাকাবাসীর

ডেমরায় দুই শিশু হত্যাকারীর ফাঁসির দাবি, এলাকাবাসীর

রাজধানীর ডেমরায় দুই শিশু হত্যার ঘটনায় মূল আসামি গোলাম মোস্তাফা ও তার খালাতো ভাই আজিজুল বাওয়ানিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার পুলিশের ওয়ারি বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) ইফতেখারুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

এলাকাবাসী বলেন, আগেই তাদের আটক করা হয়েছিল।

ডেমরায় একটি ফ্ল্যাট থেকে গত সোমবার দুটি শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। শিশু দুটি সোমবার দুপুর থেকে নিখোঁজ ছিল। রাত ৯টার দিকে তাদের মরদেহ পাওয়া যায়।

নিহত দুই শিশুর নাম ফারিয়া আক্তার দোলা (৫) ও নুসরাত জাহান (৪)। প্রতিবেশী শিশু দুটির পরিবার ডেমরার কোনাপাড়ার হজরত শাহ জালাল রোডে টিনশেড ও পাকা ভবনের পৃথক দুটি বাসায় থাকে।

নিহত দোলার চাচা রাশেদুল ইসলাম বলেন, গতকাল দুপুরে খেলা করার পর থেকে শিশু দুটিকে পাওয়া যাচ্ছিল না। খোঁজাখুঁজি শেষে তাদের না পেয়ে এলাকায় মাইকিং করা হয়। যখন মাইকিং করা হচ্ছিল, তখন এলাকার এক যুবক তাদের বলেন, মোস্তফা নামের এক ব্যক্তি দুপুরের পর শিশু দুটিকে ডেকে তার ফ্ল্যাটে নিয়ে যান।

রাশেদুল বলেন, যুবকের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে মোস্তফার খালা সেই ফ্ল্যাটে যান। তিনি শিশু দুটিকে পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় মোস্তফা যাতে ঘর থেকে বের হতে না পারেন, সে জন্য তিনি (খালা) বাইরে থেকে তালা দিয়ে আশপাশের লোকজনকে খবর দেন। তবে লোকজন এসে মোস্তফাকে ঘরে পাননি।

এলাকাবাসী জানায়, মোস্তফা পেশায় পোশাকশ্রমিক। তিনি স্ত্রী ও এক শিশুসন্তান নিয়ে ওই ফ্ল্যাটে সাবলেট থাকতেন।

ডেমরা থানার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূরে আলম সিদ্দিক বলেন, ঘটনা জানার পর মোস্তফার স্ত্রী ও শ্যালককে আটক করে পুলিশ।

নিহত শিশু দোলার বাবা ফরিদুল ইসলাম বলেন, কেন শিশু দুটিকে হত্যা করা হলো, এর কোনো কারণ খুঁজে পাচ্ছি না। মোস্তফার সঙ্গে আমাদের কোনো সম্পর্ক ছিল না। এমনকি নিহত আরেক শিশু নুসরাতের পরিবারের সঙ্গেও তাদের কোনো আলাপ ছিল না।

আর একসঙ্গে স্কুলে যাওয়া হলো না তাদের!

এ বছরই স্কুলে ভর্তি হয়েছিল নুসরাত জাহান ফারিয়া (৪) ও ফারিয়া আক্তার দোলা (৫)।

গত সোমবার সকালে তারা দুজনই স্কুলের নতুন ড্রেস পরে প্রথম স্কুলে যায়। স্কুল থেকে ফিরে দুজনে এক সঙ্গে বাসার বাইরে খেলতে যায়। এরপর আর বাসায় ফেরেনি। রাতে প্রতিবেশির একটি বাড়ির কক্ষ থেকে তাদের দুজনের মরদেহ উদ্ধার করে স্থানীয়রা। মঙ্গলবার ছিল দোলার জন্মদিন।

রাজধানীর ডেমরা থানার কোনাপাড়ার সামিউল আহসান সড়কের শেষ মাথার আবুল হোসেনের সাত তলা বাড়ির নিচ তলার একটি কক্ষ থেকে মঙ্গলবার রাতে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে শিশু দুটির বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে মানুষের ভিড়। শোকে বিহ্বল শিশুর বাবা-মা ও স্বজনরা।

নিহত ফারিয়া আক্তার দোলার বাবার নাম ফরিদুল ইসলাম। মা পারভীন বেগম। সামিউল আহসান সড়কের হাবীব মঞ্জিলের নিচতলায় ভাড়া থাকেন। বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান দোলা। বাড়িটিতে গিয়ে দেখা যায়, ঘরের ভেতরে ও বাইরে অসংখ্য মানুষ। সবাই হতবাক। দোলার মাকে সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করছেন প্রতিবেশী নারী ও স্বজনরা। বাসার সামনের কক্ষে বসে ছিলেন দোলার মামা বিলাল হোসেন ও চাচা জাকির হোসেন।

বিলাল হোসেন বলেন, এ মাসেই কোনাপাড়া আইডিয়াল স্কুলে নার্সারিতে ভর্তি করিয়েছি দোলাকে। স্কুলের নতুন ড্রেস পরে আজ সকালেই প্রথম স্কুলে যায়। পাশের বাসার নুসরাত আর দোলা সারাদিন একসঙ্গে থাকে। সেজন্য তাদের একই ক্লাসে, একই স্কুলে ভর্তি করা হয়। সোমবার সকালে স্কুলে গিয়ে তারা বই নিয়ে আসে। বই পেয়ে তারা খুব খুশি হয়েছিল।

তিনি বলেন, তারা স্কুল থেকে ১০টার দিকে আসে। বাসায় কিছুক্ষণ পড়ার পর দোলা বাসা থেকে বের হয়ে যায়। তার সঙ্গে পাশের বাসার নুসরাতও বের হয়। তারা বাসার পাশেই খেলছিল। দুপুরে আমার মা (দোলার নানু) তাকে গোসল করানোর জন্য ডাক দেয়, আসি বলে আর আসেনি। এরপর আমরা খোঁজাখুঁজি শুরু করি। মাইকিং করি কিন্তু কোথাও তাদের পাওয়া যাচ্ছিল না।

সন্ধ্যায় মোস্তফার কক্ষ থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার ছিল দোলার জন্মদিন। এই কথা মনে করে দোলার চাচা জাকির হোসেন ও মামা বিলাল হোসেনকে বিলাপ করতে দেখা গেছে।

দোলাদের গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী দশমিনা থানার আলীপুরা এলাকায়।

দোলাদের বাসার বিপরীতে একটি টিনশেডের ছোট কক্ষে বাবা-মায়ের সঙ্গে ছিল নুসরাত । তার বাবার নাম পলাশি মিয়া। মা ফাহিমা বেগম। ঝালকাঠি জেলায় তাদের বাড়ি। সাড়ে চার বছর বয়সী নুসরাত বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান।

তাদের বাসায় গিয়ে দেখা গেছে নুসরাতের মা খাটের ওপর নিথর হয়ে পড়ে আছেন। তাকে স্বজনরা সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করছেন।

নুসরাত জাহান ফারিয়ার মামা মহিউদ্দিন বলেন, স্কুল থেকে আসার পর খেলতে বের হয় নুসরাত, এরপর আর বাসায় আসেনি। আমরা বুঝতেছি না কীভাবে ওই বাসায় গেল, কে নিয়ে গেল?

মামা নুসরাতের নতুন বইগুলো হাতে নিয়ে কেঁদে ফেলেন। তিনি বলেন, ‘মাত্র একদিন স্কুলে গেল, বই নিয়ে আসলো এরপর পৃথিবী ছেড়েই চলে গেল।

যে বাড়িটিতে দুই শিশুকে হত্যা করা হয়েছে সেখান থেকে মঙ্গলবার দুপুরে ডেমরা থানা পুলিশকে আলামত সংগ্রহ করেছে।

বাড়িওয়ালা আবুল হোসেন বলেন, আমার এলাকায় এক ব্যক্তি গ্রিলের দোকানে কাজ করেন। আমার নিচতলার এই কক্ষটি যখন খালি হয়, তখন ওই ব্যক্তি তার বোন আঁখি ও বোনের স্বামী মোস্তফাকে ভাড়া দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। আঁখি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। আর বোনের স্বামী রাজমিস্ত্রি। গরীব মানুষ ভেবে তাদের কাছে ২৫০০ টাকায় কক্ষটি ভাড়া দেই। চার মাস ধরে তারা এখানে ভাড়া আছে। আমি কখনও খারাপ কিছু দেখিনি।

সোমবার রাত পৌনে ৯টার দিকে আবুল হোসেনকে বাসা থেকে ফোন দিয়ে দুই শিশুর লাশ উদ্ধারের বিষয়টি জানানো হয়। এরপর তিনি দ্রুত বাসায় ফিরে যান। বাসায় গিয়ে তিনি জানতে পারেন, ভাড়াটিয়া আঁখি গার্মেন্টস থেকে বাসায় ফিরে ওই দুই শিশুর লাশ দেখতে পান। এরপর আঁখি তার ভাইকে বিষয়টি জানালে ঘটনাটি জানাজানি হয়। স্থানীয়রা আঁখি ও তার ভাইকে পাশের একটি টিনশেড বাড়িতে আটকে রাখে। এরপর পুলিশ এসে তাদের থানায় নিয়ে যায়।

এই দুই শিশু হত্যা ঘটনায় দোলার বাবা ফরিদুল ইসলাম বাদি হয়ে ডেমরা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় রাজমিস্ত্রি মোস্তফা ও আজিজুল নামে আরেক ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। তাদের ধরা হয়েছে।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

চট্টগ্রামে বন্দুকযুদ্ধে ধর্ষণ মামলায় আসামি নিহত

মোহাম্মদপুরের বছিলার "জঙ্গি আস্তানায়" অভিযান-বিস্ফোরণ, নিহত ২

নুসরাত হত্যা: নিজের সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করল অভিযুক্ত অধ্যক্ষ সিরাজ

গাইবান্ধায় শিশুশিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক গ্রেপ্তার

নুসরাত হত্যা: খোঁজা হচ্ছে পাহারার দায়িত্বে থাকা শাকিলকে

নুসরাতের গায়ে আগুন দেয় তার দুই সহপাঠী মনি-জাবেদ

নুসরাত হত্যা: অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ

পপিই নুসরাতকে ছাদে ডেকে নেয়

সর্বশেষ খবর

রাশিয়া ও তুরস্কের প্রতি জাতিসংঘ মহাসচিবের আহ্বান

‘খালি পেটে লিচু’, ভারতে ১০৩ শিশুর মৃত্যু

ডিজিটাল মুদ্রা ‘লিব্রা’ আনছে ফেসবুক

বগুড়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গুলিবিদ্ধ ৮ মামলার আসামি নিহত