অপরাধ

মঙ্গলবার, ১০ জুলাই, ২০১৮ (১৮:৪৮)

নিখোঁজের ২২ দিন পর স্বর্ণ ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

স্বর্ণ ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

নারায়ণগঞ্জ শহরের কালিরবাজার স্বর্ণ মার্কেট থেকে নিখোঁজের ২২ দিন পর স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষের মরদেহ উদ্ধার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

আমাদের সংবাদদাতা জানিয়েছেন, স্বর্ণ মার্কেটের পাশের আমলাপাড়া এলাকার ঠাণ্ডা মিয়ার ৪তলা বাড়ির নিচতলার সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে তিনটি বস্তায় ভর্তি অবস্থায় প্রবীরের খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার করে তারা।

আর্থিক লেনদেনের বিরোধ নিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণাও তাদের।

আর এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে নিহত প্রবীরের বন্ধু ও ব্যবসায়িক অংশীদার পিন্টু এবং বাপন ভৌমিক নামের ২ স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও কারিগরকে গ্রেপ্তার করেছে তারা।

পিন্টু ওই বাড়ির দ্বিতীয় তলার ভাড়াটে—তার ফ্লাটেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গত ১৮ জুন রাতে বাসা থেকে বের হয়ে প্রবীর নিখোঁজ হন। পরদিন তার বাবা ভোলানাথ ঘোষ বাদি হয়ে সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপরও খোঁজ না মেলায় সেটি মামলায় রুপান্তরিত হয়।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শরফুদ্দিন বলেন, নিহত প্রবীর ঘোষের ঘনিষ্ঠ বন্ধু পিন্টু দেবনাথই তার খুনি।

গত রোববার পিন্টু ও তার সঙ্গে বাপন ভৌমিক নামে ২ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

গতকাল সন্ধ্যার পর পিন্টুর দেয়া তথ্য মতে অভিযান শুরু হয়, এক পর্যায়ে পিন্টু শিকার করে তার পরিকল্পনাতেই প্রবীরকে খুন হয়েছে বলে জানান তিনি

গত ১৮ জুন রাতে অপহরণের পর সেই রাতেই তাকে হত্যা করে মরদেহ খণ্ড খণ্ড করে তার ভাড়া বাসার সেপটিক ট্যাঙ্কে ফেলে দেয়া হয়েছে।

পিন্টুর দেয়া তথ্যমতে, সোমবার মধ্যরাতে শুরু হয় মরদেহের সন্ধানে অভিযান। এরপর পুলিশ পিন্টুর ভাড়া বাসার সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় প্রবীরের মাথা, দেহ ও দুই হাত উদ্ধার করে।

যে বাড়ির সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে প্রবীরের খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার করা হয় সেটি প্রবীরের জুয়েলারি দোকান থেকে মাত্র ৩টি বাড়ি দূরে। তার বন্ধু অভিযুক্ত খুনি পিন্টু স্বর্ণশিল্পালয় নামে অপর একটি জুয়েলার্সের মালিক। আর আটক বাপন ভৌমিক অপর একটি জুয়েলারির কর্মচারী।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরফুদ্দিন আরো জানান, প্রবীর নিখোঁজ হবার পর আমরা পিন্টুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ বার থানায় আনা হয়েছে। কিন্তু তার বাইপাস সার্জারি হওয়ায় সেভাবে জিজ্ঞাসা করা যায়নি। নিহত প্রবীরই তাকে কয়েক বছর আগে ভারত থেকে বাইপাস সার্জারি করিয়ে এনেছিলেন। তাদের মধ্যে কী নিয়ে দ্বন্দ্ব তা এখনও জানা যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ১৮ জুন নগরীর বালুরমাঠ এলাকার নিজ বাসা থেকে কালিরবাজার গিয়ে নিখোঁজ হন প্রবীর চন্দ্র ঘোষ। নিখোঁজের পরদিন ১৯ জুন প্রবীর ঘোষের বাবা নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এ ঘটনার এক সপ্তাহ পর অজ্ঞাত ব্যক্তি প্রবীরের পরিবারের কাছে মোবাইলফোনে মুক্তিপণ বাবদ ১ কোটি টাকা দাবি করে।

স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষের সন্ধান দাবিতে গত ২২ দিন ধরে বিভিন্ন সময়ে ব্যবসায়ী, নিহতের স্বজন, বিভিন্ন সংগঠন ও পরিবারের লোকজন মানববন্ধন ও সমাবেশ করে আসছিল। এর মধ্যে নিহতের পরিবার প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপিও প্রদানও করে।

 

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

বুলবুলের পথসভায় বিস্ফোরণ, বিএনপি নেতা আটক

চলমান ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৪ জন নিহত

নাটোরে তিন জেএমবি সদস্য গ্রেপ্তার

ঝিনাইদহে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধ’ নিহত ১

ময়মনসিংহ-কুষ্টিয়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধ’ নিহত ২

পানামা পেপার্স: ইউনাইটেড গ্রুপের চেয়ারম্যানকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

ধর্ষণের অভিযোগ ওসমানী মেডিকেলে ইন্টার্ন চিকিৎসক আটক

মহেশপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত

বিএনপির শর্ত পূরণ আদৌ সম্ভব কিনা— সংশয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা

সড়ক-মহাসড়ক-রেল লাইন-আবাসিক এলাকায় পশুর হাট বসবে না

দেশপ্রেমিক নেতৃত্বের ওপর আস্থাশীল হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বিএনপির বক্তব্যে সহিংসতার আভাস: কাদের