পাউবি-পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ৪ কর্মকর্তাকে দুদকে তলব

বৃহস্পতিবার, ০৪ মে, ২০১৭ (১৮:৪৭)
পাউবি-পানিসম্পদ-মন্ত্রণালয়ের-৪-কর্মকর্তাকে-দুদকে-তলব

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক)

হাওরে ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে পানিসম্পদের যুগ্ম সচিব, পাউবোর মহাপরিচালকসহ ৪ জনকে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কার্যালয়ে তলব করা হয়। হাওরে বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম এবং দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বলে জানিয়েছেন দুদকের কর্মকর্তারা।

এদিকে হাওর অঞ্চলের সরকারের ত্রাণ সহায়তা কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। অনেক জায়গায় এখনো ত্রাণ সহায়তা অপ্রতুল বলে অভিযোগ করেছেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

এপ্রিলের শুরু থেকে টানা বর্ষন ও পাহাড়ি ঢলে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিস্তীর্ণ হাওর এলাকা তলিয়ে যায়। অভিযোগ উঠেছে, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের দুর্নীতির কারণেই দুর্বল ও অসমাপ্ত বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবন ও ফসলহানি হয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে, হাওরে বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কারে দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. খলিলুর রহমান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক জাহাঙ্গীর কবির, অতিরিক্ত মহাপরিচালক আব্দুল হাই ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে দুদক কার্যালয়ে তলব করা হয়।

দুদকের মহাপরিচালক মুনীর চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি দল দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে।

সুনামগঞ্জের হাওর এলাকায় বাঁধ নির্মাণে ফসলের ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে জানতে গত বছরের এপ্রিলে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছিলো দুদক। এর দশ মাস পর ফেব্রুয়ারিতে তারা দুদকে প্রতিবেদন পাঠায়। ওই প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করেই তাদের তলব করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদকের কর্মকর্তারা।

এদিকে, হাওর রক্ষা বাঁধের নির্মাণ ও সংস্কারকাজে অনিয়ম, দুর্নীতি ও ধীরগতির অভিযোগ তদন্তে গত মাসে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. খলিলুর রহমানের নেতৃত্বে গঠিত এক সদস্যের কমিটি পুনর্গঠন করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ, সিলেট, নেত্রকোণা জেলার হাওর এলাকায় হাওরের ফসল ক্ষয়ক্ষতির কারণ এবং বাঁধ নির্মাণে অনিয়মের সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করতে গত ৯ এপ্রিল পাউবোর অতিরিক্ত মহাপরিচালক এ কে এম মমতাজ উদ্দিনকে আহবায়ক করে আরেকটি তদন্ত কমিটি করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

এদিকে, নেত্রকোণার হাওর অঞ্চলে ক্ষতিগ্রস্তদের সরকারি ত্রাণ তৎপরতা ও বিতরণ কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। পর্যাপ্ত ডিলার না থাকায় ওএমএস এর সুবিধা পাচ্ছেননা বলে অভিযোগ প্রত্যন্ত এলাকার মানুষের। তবে, প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, খোলা বাজারে চাল বিক্রির জন্য হাওরের উপজেলাগুলোতে অতিরিক্ত ডিলার নিয়োগ করা হয়েছে।

মৌলভীবাজারে সম্পূর্ণ ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় চার লাখ দুর্গত মানুষের জন্য এখন পর্যন্ত মাত্র এক হাজার ভিজিএফ কার্ড দেয়া হয়েছে। ত্রাণ পাননি বলে অভিযোগ করেছেন অনেকেই।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

রংপুরে হিন্দু বাড়িতে আগুন: ২ ইউপি সদস্য আটক

নওগাঁয় অভিযান চালিয়ে ৫ জেএমবি সদস্য আটক

বনানীতে ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা

নওগাঁর সীমান্ত থেকে শিশু-নারীসহ ১০ রোহিঙ্গা আটক

হোমনায় সেপটিক ট্যাংক থেকে স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার

চাঁদাবাজির সময় আটক শিল্প পুলিশের এএসআই সাময়িক বরখাস্ত