অপরাধ

সোমবার, ২৭ মার্চ, ২০১৭ (১৩:৩১)

সিলেট অভিযান: হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে মামলা

সিলেট অভিযান: হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে মামলা

সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় আতিয়া মহলে সেনা অভিযান- বিস্ফোরণে হতাহত হওয়ার ঘটনায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ।

গতকাল রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে মোগলাবাজার থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে মামলাটি করা হয়।

মোগলাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল বলেন, উপপরিদর্শক (এসআই) শিপলু চৌধুরী বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন।

ওই বিস্ফোরণে নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ছয়জন। আহত হন অর্ধশতাধিক, আসামির সংখ্যা উল্লেখ করা হয়নি।

সোমবারের ঘটনা:

সিলেটের আতিয়া মহলে সোমবার ৩য় দিনে অভিযান গড়িয়েছে।

বেলা সাড়ে ১০টার দিকে জোরে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা পাওয়া গেছে, এছাড়া সকাল থেকে থেমে থেমে গুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। এর আগে সাড়ে ৬টা থেকে ৭টা পর্যন্ত একটানা গুলি ও বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে।

আতিয়া মহলের আশপাশের এলাকায় কড়া নিরাপত্তাব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আতিয়া মহল ঘিরে দুই বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে সাধারণের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে পুলিশ। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী উৎসুক জনতার কাউকে ঘটনাস্থলের দিকে যেতে দিচ্ছে না।

এর আগে গতকাল বিকেলে ওই ভবনের কাছে পাঠানবাড়ি মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় সেনাবাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্পে সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান বলেন, অপারেশন টোয়াইলাইটে' দুই জঙ্গি নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে একজন শরীরে বেঁধে রাখা সুইসাইডাল ভেস্টের বিস্ফোরণ ঘটায়।

তিনি বলেন, জঙ্গিরা ওয়েল ট্রেইনড। ভেতরে দুই বা তারও বেশি জঙ্গি অবস্থান করছে। এদের মধ্যে নারী জঙ্গিও থাকতে পারে।

সেনাবাহিনীর এ কর্মকতা বলেন, পুরো বিল্ডিংয়ে বিস্ফোরক লাগানো আছে, এলাকাটা এখনো ঝূঁকিপূর্ণ, জঙ্গিদের কাছে সুইসাইডাল ভেস্ট আছে, তাই এ অভিযান চলবে।

তিনি আরো বলেন, ওই জঙ্গি আস্তানায় এক বা একাধিক জঙ্গি থাকতে পারে। তারা এতই দক্ষ যে সেনাবাহিনীর ছুড়ে দেয়া গ্রেনেড কুড়িয়ে নিয়ে পাল্টা ছুড়ে দিচ্ছে। পাঁচতলা বাড়িটির ভেতরে প্রচুর বোমা-বারুদ (আইইডি) পেতে রাখা হয়েছে। এতে পুরো ভবনটি বিস্ফোরণোন্মুখ হয়ে আছে। এ কারণে ধীর গতিতে অভিযান চালাতে হচ্ছে।

গতকাল সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকায় ‘আতিয়া মহলে’ জঙ্গি আস্তানায় ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ এখনো শেষ হয়নি। ভবন ঘিরে এখনো রয়েছে সেনাবাহিনীর প্যারাকমান্ডো ইউনিট ও সাজোয়া বহর। রয়েছে পুলিশের বিশেষ বাহিনী সোয়াত, বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল ও ফায়ার সার্ভিস।

সেনাবাহিনীর প্যারাকমান্ডোর নেতৃত্বে এ যৌথ অভিযান শনিবার সকাল ৯টায় শুরুর তিন ঘণ্টার মধ্যেই ওই ভবনে আটকেপড়া ৭৮ জনকে নিরাপদে বের করে আনা হয়। পরে সেনাবাহিনীর এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বেশ কয়েকজন জঙ্গি ওই ভবনে বিক্ষিপ্তভাবে অবস্থান করছে। দুপুরের পর থেকে থেমে থেমে মুহুর্মুহু গুলি আর বোমা বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়।

এরইমধ্যে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকায় জঙ্গি আস্তানায় অদূরে চেকপোস্টের সামনে পৃথক দুটি বোমা হামলায় পুলিশ সদস্যসহ ছয় জন নিহত হয়েছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ আহত হয়েছেন অন্তত ৪০ জন। তাদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল থেকে মোটরসাইকেল ও বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে র্যা ব কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবুল কালাম আজাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে বিদেশে স্থানান্তর করা হয়েছে। সিলেটের হুমায়ুন রশিদ চত্বর থেকে শিববাড়ি এলাকা পর্যন্ত জনসাধারণ ও যানচলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে প্রশাসন।

সন্ধ্যা ৭টার দিকে হঠাৎ করেই জঙ্গি আস্তানা থেকে এক কিলোমিটার দূরে ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কের পাঠানপাড়া এলাকায় একটি চেকপোস্টে বোমা হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে ঘটনাস্থলেই দুই জন নিহত হন। এর মধ্যে একজন হচ্ছেন পুলিশ পরিদর্শক আবু কায়সার। অন্যজন মদনমোহন কলেজের ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল আলম অপু। এ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ আহত হন ১৫ জন।

এর পর পরই ঘটনাস্থল থেকে কিছু দূরে আরো একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়। এতে একজন নিহত হন। তার পরিচয় জানা যায়নি—এ ঘটনায় আহত হন আরো ২৫ জন। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আরো একজন।

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযান দেখতে ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কের পাঠানপাড়া রাস্তার আশপাশে উৎসুক জনতার ভীড় করেন। সেখানেই মোটরসাইকেলে করে বোমা হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। ঘটনাস্থল থেকে একটি মোটরসাইকেল ও বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। এরপর তল্লাশী চালানোর সময় কিছু দূরে বিস্ফেোরিত হয় দ্বিতীয় বোমাটি।

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার এই বাড়িটি গত বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকে ঘিরে রাখা হয়েছে। শুক্রবার ঢাকা থেকে পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট সোয়াট সিলেটে গিয়ে পুলিশের সঙ্গে ঘটনাস্থল ঘেরাও করে। এরপর শনিবার সকাল থেকে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো দল ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’ নামে অভিযান শুরু করে। এ অভিযানের মধ্যেই শনিবার সন্ধ্যায় দুই দফা বিস্ফোরণে দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৬ জন নিহত এবং আরও ৪৪ জন আহত হন। স্মরণকালের মধ্যে এটা সবচেয়ে দীর্ঘ ও রক্তক্ষয়ী জঙ্গিবিরোধী অভিযান।

এছাড়াও রয়েছে

চুয়াডাঙ্গায় জামাতের নেতাকর্মীসহ আটক ৩০

নাটোরে জেএমবির ২ সদস্য গ্রেপ্তার

৯ জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১১

কারওয়ান বাজারে ডিএনসিসির অভিযান, জরিমানা

ইবিএলের বুথে নিরাপত্তা কর্মীর মৃতদহ

সারাদেশে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৯ জন নিহত

ছয় জেলায় কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৬ জন নিহত

যশোর ও ময়মনসিংহের বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৪

না ফেরার দেশে তাজিন আহমেদ

তোমরা কি এ বিশাল নাফ নদ হয়ে এসেছো? রোহিঙ্গা শিশুদের প্রিয়াঙ্কা

মাদক বিষয়ে বদির বিরুদ্ধে তথ্য-প্রমাণ চাইলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঈদে সিএনজি স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে: ওবায়দুল