জলদস্যু নোয়া বাহিনীর আত্মসমপর্ণ, স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে সহযোগিতার আশ্বাস

শনিবার, ০৭ জানুয়ারী, ২০১৭ (১৯:০৩)
জলদস্যু-নোয়া-বাহিনীর-আত্মসমপর্ণ,-স্বাভাবিক-জীবনের-ফিরতে-সহযোগিতার-আশ্বাস

জলদস্যু নোয়া বাহিনীর আত্মসমপর্ণ, স্বাভাবিক জীবনের ফিরতে সহযোগিতার আশ্বাস

দস্যুতা থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে এবার আত্মসমর্পণ করেছেন সুন্দরবনের জলদস্যু নোয়া বাহিনীর প্রধান মোহাম্মম বাকি বিল্লাহ মিয়া ও তার ১২ সহযোগী।

শনিবার দুপুর ১টার দিকে কুয়াকাটার রাখাইন মার্কেট মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করে অস্ত্র জমা দেন তারা।

১২ জলদস্যু তাদের কাছে থাকা দেশি-বিদেশি ২৫টি আগ্নেয়াস্ত্র ও এক হাজার ১০৫ রাউন্ড গুলি জমা দেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আত্মসমর্পণ করা জলদস্যুদের স্বাভাবিক জীবন গড়তে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সেইসঙ্গে যারা এখনো দস্যুতা চালিয়ে যাচ্ছে তাদের আত্মসমর্পন করার আহ্বান জানান তিনি।

র্যা বের দেয়া তথ্য মতে, দস্যু নোয়া বাহিনী সুন্দরবনের পূর্ব ও পশ্চিম অঞ্চলে সক্রিয় ছিল। ২০১৫ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত নোয়া বাহিনী সুন্দরবনে ত্রাস সৃষ্টি করেছে।

উল্লেখ্য, র্যা বের কঠোর অভিযানে গত বছরের ৩১ মে সুন্দরবনের কুখ্যাত দস্যু মাস্টার বাহিনীর ১০ জন ৫২টি আগ্নেয়াস্ত্র এবং প্রায় ৪৫০০ রাউন্ড গোলাবারুদ ও ১৪ জুলাই মজনু ও ইলিয়াস বাহিনীর ১১ জন ২৫টি আগ্নেয়াস্ত্র ও এক হাজার ২০ রাউন্ড গোলাবারুদসহ আত্মসমর্পণ করেন।

এরপর ৭ সেপ্টেম্বর আলম ও শান্ত বাহিনীর ১৪ জন ২০টি আগ্নেয়াস্ত্র ও এক হাজার চার রাউন্ড গোলাবারুদসহ র্যা ব-৮ এর কাছে আত্মসমর্পণ করেন।

১৯ অক্টোবর সাগর বাহিনীর ১৩ জন ২০টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৫৯৬ রাউন্ড গোলাবারুদ এবং সর্বোশেষ খোকাবাবু বাহিনীর ১২ জন সদস্য ২২টি আগ্নেয়াস্ত্র ও এক হাজার তিন রাউন্ড গোলাবারুদসহ র্যা ব-৮ এর কাছে আত্মসমর্পণ করেন।

এ সশয় র্যা বের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য ও মৎস্য ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

এই ক্যাটাগরীর আরও খবর

প্যারাডাইস পেপারসে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান -ব্যক্তির নাম মিলল

রংপুরে হিন্দু বাড়িতে আগুন: ২ ইউপি সদস্য আটক

নওগাঁয় অভিযান চালিয়ে ৫ জেএমবি সদস্য আটক

বনানীতে ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা

নওগাঁর সীমান্ত থেকে শিশু-নারীসহ ১০ রোহিঙ্গা আটক

হোমনায় সেপটিক ট্যাংক থেকে স্কুলছাত্রের মরদেহ উদ্ধার