আদালত

বৃহস্পতিবার, ১০ জানুয়ারী, ২০১৯ (১৩:৫৫)

রিজার্ভ চুরি: আরসিবিসির মায়ার কারাদণ্ড

মায়া সান্তোস দেগুইতো

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরিসহ অর্থ পাচারের আট দফা অভিযোগে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক মায়া সান্তোস দেগুইতোকে কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত।

আদালত জানিয়েছে, এ সাজার মেয়াদ ৩২ থেকে ৫৬ বছর হবে। প্রতিটি অভিযোগের জন্য মায়ার চার থেকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার রয়টার্সের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এ চুরিকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাইবার চুরির ঘটনা বলে মনে করা হয়। এ চুরিতে প্রথম সাজা পেলেন মায়া। কারাদণ্ডের পাশাপাশি মায়াকে ১০৩ মিলিয়ন ডলারের অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।

আদালত ২৬ পৃষ্ঠার রায়ে জানিয়েছে, অর্থ লেনদেনে তার কিছুই করার ছিল না বলে মায়া আদালতে যে কথা বলেছেন, তা একেবারে নির্জলা ও বড় ধরনের মিথ্যা।

তবে মায়ার আইনজীবী ডেমি কাস্টোডিয়ো এই রায়ের পর জানিয়েছেন, তারা রায়ে হতাশ— এ বিষয়ে মায়া উচ্চ আদালতে যাবেন।

২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্ক থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়। এর মধ্যে ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার চলে যায় ফিলিপাইনে। পরে ফিলিপাইনের আরসিবিসি ব্যাংকের মাকাতি শাখার মাধ্যমে তা ক্যাসিনো ও বিভিন্ন ব্যক্তির হাতে চলে যায়। অর্থ পাচারের এ কাজে আরসিবিসির মাকাতি শাখার ব্যবস্থাপক হিসেবে সরাসরি জড়িত ছিল মায়া সান্তোস দেগুইতো।

ফিলিপাইনের মাকাতি শহরের আরসিবিসি শাখার মাধ্যমে ওই অর্থ ফিলিপাইনে আসার পর তা মুদ্রা লেনদেনকারী ফিলরেম নামের এক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে চলে যায় তিনটি ক্যাসিনোর কাছে।

সিএনএন ফিলিপাইনের প্রতিবেদনে বলা জয়, মায়া সান্তোস দেগুইতো যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংক থেকে অর্থ আনা এবং তা চারটি অজ্ঞাত ব্যক্তির অ্যাকাউন্টে জমা করার বিষয় নিজে তদারকি করেন বলে আদালত রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে।

ফিলিপাইনের মাকাতি শহরের আরসিবিসি শাখার মাধ্যমে ওই অর্থ ফিলিপাইনে আসার পর তা মুদ্রা লেনদেনকারী ফিলরেম নামের এক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে চলে যায় তিনটি ক্যাসিনোর কাছে। এভাবে হাতবদল হয়ে সবশেষে ফিলরেমের মাধ্যমে ওই আট কোটি ডলার ফিলিপাইন থেকে আবার অন্য দেশে পাচার হয়ে যায়। এতে ওই ব্যাংকের তৎকালীন শাখা ব্যবস্থাপক মায়া সান্তোস দেগুইতো সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ পায় ডিওজে। এ জন্য আরসিবিসি থেকে বরখাস্ত হন তিনি।

গত বছরের আগস্টে ফিলিপাইন সরকার তাকে এ কারণে গ্রেপ্তারও করে। মায়া সান্তোস দেগুইতো সব সময় অর্থ পাচারের ঘটনার সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ততার বিষয়টি অস্বীকার করে এসেছেন। তার দাবি, আরসিবিসির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তাকে কিছু কাজ করতে হয়েছে।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

ভোটের রাতে ধর্ষণের আসামি রুহুলের জামিনের আদেশ প্রত্যাহার

বাসের ঘাতক চালক সিরাজুল ৭ দিনের রিমান্ডে

আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ‘জরুরি খরচ’ দেয়ার নির্দেশ

গ্যাটকো দুর্নীতি: অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়ে ১৭ এপ্রিল

অরফানেজ মামলায় খালাস চেয়ে খালেদা জিয়ার আপিল

রিজার্ভ চুরি: বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে পাল্টা মামলা আরসিবিসির

নূরসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বিএনপির ১৪ নেতার জামিন স্থগিতের বিষয়ে আদেশ ১১ এপ্রিল

সর্বশেষ খবর

বিএনপি শক্তিশালী দল হিসেবে অবতীর্ন হোক: তথ্যমন্ত্রী

৪৯তম মহান স্বাধীনতা দিবস মঙ্গলবার

যারা স্বাধীনতা পুরস্কার পেলেন

আর পথ হারাবে না বাংলাদেশ: শেখ হাসিনা